নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, মালদা:
চাকুরি দেওয়ার নাম করে এক লক্ষ কুড়ি হাজার টাকা প্রতারণার অভিযোগ উঠল মালদার গাজলের প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক সুশীল রায়ের বিরুদ্ধে। প্রতারিত ব্যক্তি অভিযুক্ত তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে গাজোল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। প্রতারণার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূল নেতা সুশীল রায়। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে গাজোল থানার পুলিশ। গোটা ঘটনায় চরম অস্বস্তিতে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব।

গাজোল থানার রানীগঞ্জ ২ নম্বর ব্লকের আরজি জলসা গ্রাম। এই গ্রামের বাসিন্দা পেশায় গ্রামীণ চিকিৎসক শ্যামল সরকার। তার অভিযোগ ২০১৫ সালে আশা কর্মী নিয়োগের ব্যাপারে তার স্ত্রী দুর্গা সরকারের চাকুরীর জন্য তিনি তৎকালীন তৃণমূলের বিধায়ক সুশীল রায়ের দ্বারস্থ হন। চাকুরী করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে সুশীল রায় তার কাছ থেকে এক লক্ষ কুড়ি হাজার টাকা নেয়। কিন্তু এতদিনেও সেই চাকুরি হয়নি।

শ্যামল সরকারের অভিযোগ,
তিনি সুশীল রায় এর বাড়িতে গিয়ে বার বার টাকা চাইলে তাকে সুশীল রায় নানা ভাবে অপদস্ত করছেন। টাকা ফেরত দেওয়া তো দূরের কথা উল্টো তাকে হুমকি দিচ্ছেন। তিনি স্থানীয় তৃণমূল নেতা থেকে জেলা নেতৃত্বে দ্বারে দ্বারে ঘুরে সুবিচার পাননি। বাধ্য হয়ে গাজল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে।

তার স্ত্রী দূর্গা সরকার জানান, এত টাকা প্রতারিত হওয়ার পর আর্থিক অনটনের মধ্যে তাদের সংসার চলছে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত প্রাক্তন বিধায়ক তথা এলাকার দাপুটে তৃণমূল নেতা সুশীল রায়। তিনি বলেন, দলেরই একাংশ তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।