সাহেব আলি, টিডিএন বাংলা, মুর্শিদাবাদ: এ বছর উচ্চ মাধ্যমিকে বিজ্ঞান বিভাগে রাজ্যে সপ্তম স্থান অধিকার করেছে মুর্শিদাবাদের সাফিদা খাতুন। তার প্রাপ্ত নম্বর ৪৮৯। সাফিদার বাড়ি লালগোলা ব্লকের প্রত্যন্ত গ্রাম রামচন্দ্র পুরে। সাফিদা মাধ্যমিকে ব্লকে প্রথম হয়ে লালগোলাবাসীর মুখ উজ্জ্বল করেছিল। এবার রাজ্যে সপ্তম স্থান অধিকার করে রাজ্যবাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে।সাফিদার পিতা পেশায় কৃষক। দিনরাত হাড় ভাঙা পরিশ্রম করে ছেলেমেয়েদের পড়াশুনা করাচ্ছেন। মাধ্যমিক পরীক্ষায় ভালো ফল করাই অনেক আশা নিয়ে কম খরচে আল-আমীন মিশনে পড়ানোর স্বপ্ন দেখতেন পিতা আব্দুস সালাম।

কিন্তু সমাজ সেবার উদ্দেশ্যে মুখোশের আড়ালে চলা মিশনের পাল্লায় পড়ে নিজের চাষের জমি গুলি পর্যন্ত খুইয়েছেন তিনি।আজ মেয়ের সফলতার আনন্দে কেঁদে ফেললেন তিনি। টিডিএন বাংলাকে জানান, “দুই ছেলে এক মেয়ে নিয়ে আমার সংসার। আয় বলতে চাষাবাদ থেকে যা হয় ওই টুকুই। এই সামান্য রোজগারে সংসার চালানো খুবই কষ্টের। তাই দিয়েই ছেলেমেয়েদের পড়ার খরচ চালাতে হয়।

মেয়ের মাধ্যমিকে রেজাল্ট ভালো থাকায় ভর্তির সময় আল-আমীন মিশন নিখরচায় পড়ানোর আশ্বাস দিলেও পরে একই হারে মেয়ের খরচ দিতে হয়েছে। কিন্তু মেয়েকে কিভাবে ডাক্তারি পড়াবো ভেবে পাচ্ছি না!”এতদিন কোনোরকমে মেয়ের পড়াশুনার খরচ টেনেছেন তিনি। এখন মেয়ে ডাক্তারি পড়তে চায়। সেই খরচ কিভাবে সামলাবেন- ভেবে ভিমরি খাচ্ছেন এই দরিদ্র পিতা।