টিডিএন বাংলা ডেস্ক : ‘মানবতা সকল সম্প্রদায়ের ঊর্ধ্বে’। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনই পোস্ট দেখে হিন্দু ভাইয়ের প্রাণ বাঁচাতে নিজে হাসপাতালে গিয়ে রক্ত দিলেন আব্দুল্লাহিল ফারুক। ভাঙড়ের কৃষ্ণমাটি গ্রামের বাসিন্দা ফারুকের এমন মানসিকতা প্রশংসা পেয়েছে সমাজের বিভিন্ন স্তর থেকে। কলকাতার ভবানীপুরের বাসিন্দা পেশায় ব্যবসায়ী বাসুদেব মুখার্জি (৫০) দীর্ঘ দেড় বছর দুরারোগ্য ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত। কঠিন রোগের সঙ্গে নিউটাউন টাটা মেডিক্যাল সেন্টারে ১৭/৬৪৪৮ নম্বর বেড়ে শুয়ে টানা দেড় মাস ধরে জীবন সংগ্রামের পাঞ্জা লড়ছেন তিনি। সেখানেই রক্ত সংকটের কবলে পড়েন বাসুদেব।

তার রক্তের প্রয়োজনীয়তা মেটাতে এগিয়ে আসেন ভাঙড়ের ঐ বছর ছাব্বিশের যুবক। বৃহস্পতিবার নিউটাইনের ঐ বেসরকারি হাসপাতালে গিয়ে রক্ত দিয়ে আসেন তিনি। এদিকে রক্তদানের শেষে যেমন গর্বিত ফারুক বলছিলেন, মানুষের পাশে থাকাটা একটা বড় ধর্ম। তেমনি বাসুদেব বাবুর মেয়ে রেশমি মুখার্জিও রক্তদাতা ফারুককে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাতে ভোলেননি। কালীঘাটের ওমেন্স খ্ৰীষ্টান কলেজের অধ্যক্ষা জয়ন্তা পাল তাঁর এক বন্ধুর পরিবারের সদস্যের প্রাণ বাঁচাতে যেকোন গ্রূপের রক্ত দেওয়ার আবেদন জানিয়েছিলেন। সেই আবেদনে সাড়া দিয়ে ওই কলেজের এক মুসলিম ছাত্রী সোশ্যাল মিডিয়ায় আর্জি জানান। ফেসবুকের ঐ পোস্টটি দেখেই ভাঙড়ের তরুণ রক্ত দিতে ছুটে যান।