টিডিএন বাংলা ডেস্ক: মাদ্রাসায় অমুসলিম পড়ুয়াদের পড়ার আগ্রহ বাড়ছে। বৃস্পতিবার প্রকাশিত হয়েছে হাইমাদ্রাসা, আলিম ও ফাজিলের ফলাফল। এই ফলাফলে ও হাজার ২৫৪ জন অমুসলিম পরীক্ষার্থীদের মধ্যে পাশ করেছে ৪ হাজার ৫৮২ জন। পাশের হার ৮৮.০৮ শতাংশ। জঙ্গলমহলের পিছিয়ে পড়া তকমাপ্রাপ্ত জেলা পুরুলিয়ার হুড়া থানার হাইমাদ্রাসার পরিক্ষার্থী সুমনা মাহাতো। তার প্রাপ্ত নং ৬৬১। সুমনা মাহাতোর বাবা আদিত্য মাহাতো এই মাদ্রাসার ভোকেশনাল শিক্ষক।মা নিজের গ্রাম জাদুড়ির অঙ্গনারির কর্মী।পঞ্চম শ্রেণি থেকেই সুমনা এই মাদ্রাসার ছাত্রী। বরাবর ক্লাসে প্রথম হত বলে জানালেন প্রধানশিক্ষক আহমেদ উল্লাহ আনসারি।অমুসলিম ছাত্রী হয়েও ইসলাম পরিচয়ে ‘ডবল এ’ পেয়েছে। এ ছাড়া জীবন বিজ্ঞান, অঙ্কতেও ভালো ফল করেছে বলে জানায় সুমনা মাহাতো। মুসলিম ছাত্র- ছাত্রীদের সাথে পড়তে তার কোনও অসুবিধে হত না। সমস্ত শিক্ষক ,শিক্ষিকা এবং ক্লাসমেটরা তাকে যথেষ্ট সাহায্য করেছে। সন্ধ্যাবেলায় প্রতিদিন ভগবানের কাছে প্রার্থনা করা সুমনা , ইসলামিক পরিচয়ে ভালো ফল করে এই অশান্ত সময়ে সম্প্রীতির সবচেয়ে বড় উদাহরণ হিসাবে নিজেকে তুলে ধরেছে। এ বছর বীরভূম, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া এবং দুই বর্ধমানে অমুসলিম পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি বলেই জানালেন মাদ্রাসা শিক্ষা পরিষদের সভাপতি আবু তাহের কামুরুদ্দিন। সুমনার সাফল্যে তার স্কুলের শিক্ষক ,গ্রামের বাসিন্দা সবাই খুশি। এরপর এই মাদ্রাসাতেই বিজ্ঞান নিয়ে ভর্তি হয়ে পড়া চালিয়ে যাবে বলে জানাল সুমনা।