টিডিএন বাংলা ডেস্ক: এক সময় গান্ধিজির অসহযােগ ও স্বাধীনতা আন্দোলনকে শক্তিশালী করেছিল খিলাফত কমিটি। বর্তমানে সিএএ , এনআরসি ও এনপিআরের মাধ্যমে দেশের সংবিধানকে বিপদে ফেলা হচ্ছে। তাই দেশের সংবিধান ও গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে পথে নেমেই বিভাজনের রাজনীতিকে রুখতে চায় তারা।  বৃহস্পতিবার কলকাতা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই জানালেন কলকাতা খিলাফত কমিটির আহ্বায়ক এম এম ইশহাক। সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে ১৫ ফেব্রুয়ারি শনিবার নাখােদা মসজিদ থেকে কলকাতার ‘ শাহিনবাগ পার্কসার্কাস পর্যন্ত মহামিছিলের আয়োজন করেছে খিলাফত কমিটি।এদিন ওই সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন রেড রােডের ইমামে ঈদাইন কারী ফজলুর রহমান , ডা. এম.এন. হক , খিলাফত কমিটির সদস্য মুমতাজ আহমেদ, সমাজকর্মী সুজাউদ্দিন আহমেদ, কবি প্রসূন ভৌমিক প্রমুখ বিশিষ্টরা।

এদিন ক্বারী ফজলুর রহমান বলেন , “ দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আমরা চিন্তিত। বিভাজনকারী আইনের বিরুদ্ধে দেশজুড়েই প্রতিবাদ চলছে। কিন্তু পুলিশ প্রতিবাদকারীদের উপর জুলুম করছে যা নিন্দনীয়। মােদি সরকার মানুষের কথা শুনতে চায় না। তিনিও বলেন, এনপিআরের জন্য কোনও কাগজ দেখানাের পক্ষপাতি তারা নন,তবে যারা বাড়িতে আসবেন তাদের অনেকেই শিক্ষক তাই কারও যেন অসম্মান না হয় , সে আবেদনও রাখেন ক্বারী ফজলুর রহমান। তারপরেই ডা. এম. এন. হক জানান, আট দফা দাবিতে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি খিলাফত কমিটি কলকাতার রাজপথে মিছিল করবে।