টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ইতিমধ্যে করোনাভাইরাসের জেরে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে চিন। চিন ছাড়িয়ে বিশ্বের ২৫ টি দেশ করোনাভাইরাস আতঙ্কে থর থর করে কাঁপছে। করোনা নিয়ে রীতিমত আতঙ্কিত ভারতও করোনাভাইরাস ঠেকাতে ভারতে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে নানা রকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা। কলকাতা বিমানবন্দরে ব্যাংকক ফেরত দুই যাত্রীকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার সময় করোনাভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে এমনটাই সন্দেহ করেছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

বিমানবন্দরের ডিরেক্টর কৌশিক ভট্টাচার্য্য এমনটাই জানিয়েছেন। যদিও পরে ওই তিন ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাসের লক্ষণ পাওয়া যায়নি বলেও জানিয়ে দিয়েছে বিমানবন্দর। তিনযাত্রীকে ইতিমধ্যেই হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ইন্ডিগো বিমানবন্দর এর পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা হু-এর নির্দেশিকা মেনে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ অবধি কলকাতা থেকে গুয়াংঝাউ এবং গুয়াংঝাউ থেকে কলকাতার সমস্ত উড়ান চলাচলে স্থগিতাদেশ রাখা হয়েছে। চিনের ইস্টার্ন এয়ারলাইন সংস্থাও ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৬ ফেব্রুয়ারি তাঁদের উড়ান বাতিল করেছে।

বিমানবন্দর সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই জানুয়ারি থেকে যে সব যাত্রীরা চিন, হংকং, সিঙ্গাপুর এবং ব্যাংকক থেকে আসছেন তাঁদের প্রত্যেককেই করনা ভাইরাসের পরীক্ষা করে তবেই যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে|

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় চিনে মৃত্যু হয়েছে ১১৬ জন। শুধুমাত্র হুবেই প্রদেশেই মারা গেছেন ১১৬ জন। নতুন করে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৪,৮২৩ জন মানুষ। শুক্রবার সকাল পর্যন্ত এই মারণ-ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে কমপক্ষে ৬৫ হাজার।