সামাউল্লাহ মল্লিক, টিডিএন বাংলা, কলকাতা : ছাত্রী হেনস্থার ঘটনার পরিমাণ দিন দিন বেড়েই চলেছে শহরে। উম্মে হানি মল্লিক নামের এক ন্যাশনাল এলিজিবেলিটি টেস্ট (NET) পরিক্ষার্থী আবারো শিকার হলেন হেনস্থার। প্রেট্রোরিয়া স্ট্রিটের অভিনব ভারতী হাই স্কুলে আসন পড়েছিল ওই ছাত্রীর। মাত্র ৫-৭ মিনিট দেরীতে পরিক্ষা কেন্দ্রে পৌছানোর জন্য পরীক্ষায় বসতে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন ওই পরীক্ষার্থী। শুধু উম্মে হানিই নয় বনগাঁর এক মেয়েকেও পরিক্ষা হলে ঢুকতে দেয়নি গার্ড।

পৌছাতে দেরীর কারণ জানতে চাইলে উম্মে হানি নামের ওই পরীক্ষার্থী বলেন, “সকাল সাড়ে নটা থেকে পরিক্ষা ছিল। আমি এক্সাইড মোড় থেকে পথচারীদের জিজ্ঞাসা করে যাচ্ছিলাম, মাঝে হেস্টিংসে এক ট্রাফিক পুলিশকে রাস্তা জিজ্ঞাসা করলে তিনি আমায় ১০ মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখেন।”
পরিক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত অন্যান্য পরিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের অনুরোধ সত্বেও ওই দুই মেয়েকে পরিক্ষা দিতে দেওয়া হয়নি বলে জানা গিয়েছে। উম্মে হানি এই হেনস্থার পর প্রশ্ন তুলে বলেন, “পরিক্ষা দেব আমরা, সেখানে দুরত্বের কারণে যে কেউ দেরীতে পৌছাতে পারে। তার জন্য পরিক্ষায় বসতে পাবনা কেন ?” পরিক্ষার্থীদের এমন হেনস্থা কেন করা হবে বলেও প্রশ্ন তোলেন তিনি।
ওই পরিক্ষার্থীর নিজের পরিক্ষায় বসতে না পারার জন্য ট্রাফিক পুলিশ এবং পরীক্ষা কেন্দ্রের ডিপ্লয়েড সিকিউরিটি পার্সনকে দায়ী করে বলেন, “ট্রাফিক পুলিশ সাহায্যকারী হওয়ার পরিবর্তে সাধারণ মানুষের জন্য ভয়াবহ হয়ে উঠেছে।”