টিডিএন বাংলা ডেস্ক : মোদি তখনও দিল্লি ফিরে গেছেন কিনা সন্দেহ! আক্রমণের ঝাঁঝ আরো তীব্র করলেন মমতা। কারণ মোদি পরের পর সভা করছেন এই বঙ্গে। ঠাকুরনগর থেকে দুর্গাপুর। এদিন ময়ানাগুড়ি। সবক্ষেত্রেই তিনি তৃণমূলকে নিশানা করেছেন। তাই এদিন মমতা আসরে নামতে দেরি করেননি। সাংবাদিক বৈঠক করে তিনি বলেন, মোদি দুর্নীতির রাজা। টাকায় ভর করে মোদি প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন, অভিযোগ মমতার।
চিটফান্ড থেকে ধর্না- পরের পর ইস্যু তুলে ধরে মমতাকে নিশানা করেন মোদি। পাল্টা মুখ্যমন্ত্রী বলেন, উনি ভারত সম্পর্কে কিছু জানেন না। উনি গোধরাকণ্ডের পর এখানে এসেছিলেন। উনি রাফালের মূল কারিগর, নোট বাতিলের হোতা, উনি দুর্নীতির শিরোমণি, ঔদ্ধত্যের প্রতীক উনি।

এদিন আবার প্রকাশ্যে এল রাজ্য-কেন্দ্র সংঘাত। এবার বিষয় জলপাইগুড়ির সার্কিট বেঞ্চ। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পর তাঁর নৈতিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন মমতা। তাঁর কথায়, জমি দিয়েছে রাজ্য, টাকাও ঢেলেছি। উনি রাজ্য সরকার, হাই কোর্টকে বাদ দিয়ে উদ্বোধন করে দিলেন। সবমিলিয়ে তরজা জমে উঠেছে।