রেবাউল মন্ডল, টিডিএন বাংলা, নদীয়া: সুপ্রিমকোর্টের নির্দেশে ‘সমকাজে সমবেতন’ সাপেক্ষে অবিলম্বে বেতন বৃদ্ধি সহ অন্যান্য দাবিতে সোমবার নদীয়া জেলা প্রকল্প আধিকারিককে স্বারকলিপি দিল রাজ্য পার্শ্ব শিক্ষক সমন্বয় সমিতি। দেশের ভবিষ্যত সুনাগরিক গড়ার দায়িত্ব যাদের কাঁধে তারাই যদি জীবন ধারণে অক্ষম হয়ে পড়েন তাহলে এই মহতী কাজ সাধন কিভাবে সম্ভব প্রশ্ন তুলে পার্শ্ব শিক্ষক সমন্বয় সমিতির রাজ্য সভাপতি শামীম আকতার টিডিএন বাংলাকে বলেন, “বিগত ৬ মাসে অর্থাভাবে বিনা চিকিৎসায় ও হতাশাগ্রস্থ হয়ে ২৩ জন পার্শ্ব শিক্ষক প্রয়াত হয়েছেন, যা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। অবিলম্বে ‘এক দপ্তর এক নিয়ম’ চালুর পাশাপাশি মৃত পার্শ্বশিক্ষকদের এককালীন আর্থিক সাহায্য সহ তাদের পোষ্যকে চাকুরী প্রদানের দাবি জানাচ্ছি আমরা।”

 

তিনি আরো বলেন, “চাইল্ড কেয়ার লিভ ও ইপিএফ এর ব্যাকলগ প্রদান সহ সমস্ত পার্শ্বশিক্ষকদের প্রারম্ভিক বিদ্যালয় শিক্ষকের মর্যাদাকে সুনিশ্চিত করতে হবে।” উল্লেখ্য, দীর্ঘ ১৪ বছর যাবৎ বিভিন্ন প্রাথমিক ও উচ্চপ্রাথমিকে নিযুক্ত আছেন রাজ্যের প্রায় ৪৮ হাজার পার্শ্বশিক্ষক। সরকারি নির্দেশানুসারে ২০১৩ ও ২০১৬ সালে মাত্র ৫% ইনক্রিমেন্ট ছাড়া কোন সাম্মানিক ভাতাও বাড়ে নি তাদের। সম্প্রতি সুপ্রিমকোর্ট রাজ্য সরকারকে ‘সমকাজে সমবেতন’ সাপেক্ষে পার্শ্বশিক্ষকদের নূন্যতম প্রাথমিক বেতন কাঠামোয় ভাতা প্রদানের নির্দেশ দিলেও আজও তা কার্যকর হয়নি বলে অভিযোগ। বর্তমানে প্রাথমিক ও উচ্চপ্ৰাথমিকে যথাক্রমে ৫২৪০ ও ৭২০৪ টাকা সাম্মানিক ভাতা পান পার্শ্বশিক্ষকরা। এদিন জেলা প্রকল্প আধিকারিক তাদের দাবিগুলিকে অবিলম্বে পশ্চিমবঙ্গ সর্বশিক্ষা দফতরে পাঠিয়ে দেবেন বলে প্রতিনিধিদলকে আস্বস্ত করেন।