টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ভারতের উন্নয়নের ক্ষেত্রে আদিবাসীরা ‘উপেক্ষিত’, এমনটাই মন্তব্য করে ফের মোদি সরকারের বিরুদ্ধে সরব হলেন বর্ষীয়ান অর্থনীতিবিদ তথা নোবেলজয়ী অমর্ত্য সেন। আদিবাসীদের ভোট নেওয়ার জন্য অনেক মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। তাদের জন্য কোনও কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হয় না কিংবা তাদের উন্নয়নের জন্যও ভাবা হয় না। তারই ফলে আদিবাসীরা পিছিয়ে পড়ছেন। এ রাজ্যেও একই ছবি। আদিবাসীদের উন্নয়নে আমাদের আরও মনোযোগী হতে হবে। বুধবার এশিয়াটিক সোসাইটির বিদ্যাসাগর সভাঘরে পশ্চিমবঙ্গের আদিবাসীদের নিয়ে প্রতীচী ইনস্টিটিউট ও এশিয়াটিক সোসাইটির একটি যৌথ রিপোর্ট প্রকাশ অনুষ্ঠানের পরে এভাবেই মন্তব্য করেন অমর্ত্য সেন।

প্রতীচী ইনস্টিটিউটের গবেষকেরা জানান, পশ্চিমবঙ্গে ৪০টি আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে ‘তফসিলি জনজাতি’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। কিন্তু তাদের বিভিন্নতা এবং স্বাতন্ত্র্য সম্পর্কেও সমাজে সচেতনতার অভাব আছে। সেই সঙ্গে সরকারি ঔদাসীন্যের চেহারাটাও স্পষ্ট। ৫৩ শতাংশ আদিবাসী মানুষ কাজকর্মে নিয়োজিত। তার মধ্যে ৫৫ শতাংশই কৃষি এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে মজুরের কাজ করেন। বাকিরা কৃষক। ৪৪ শতাংশ আদিবাসী পরিবারের শৌচাগার নেই এবং পাঁচ শতাংশের শৌচাগার থাকলেও তা ব্যবহারযোগ্য নয়। প্রতীচীর গবেষকদের পরামর্শ, আদিবাসীদের ‘সমস্যা’ হিসেবে না-দেখে সহ-নাগরিক হিসেবে দেখলে আখেরে দেশের উন্নয়ন সম্ভব।