সামিম আক্তার, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: রাজ্য ও কেন্দ্র সরকারের ঘোষিত লকডাউনে সমস্যায় পড়েছেন হাজারও দিন মজুর, ভ্যান চালক, রিকশা চালক, নৌকাঘাটের মাঝিরা। ঠিক এই পরিস্থিতিতে জাতধর্মের ঊর্ধ্বে উঠে লকডাউনে সমস্যায় পড়া দুঃস্থ-অসহায়দের খোঁজ নিয়ে বাড়ি বাড়ি খাবার পৌঁছে দিচ্ছে মেটিয়াব্রুজের কয়েকজন বাসিন্দা। দাওয়াহ সেন্টার নামক একটি সংস্থার উদ্যোগে এধরনের অভিনব উদ্যোগ নিয়ে ইতিমধ্যেই মেটিয়াব্রুজ, মহেশটোলা, কালীমন্দিরতলা সহ বিভিন্ন এলাকায় প্রায় এক হাজারেরও বেশি মানুষের কাছে খাবার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। বিপদের দিনে তাদের পাশে দাঁড়ানোয় মুসলিম ব্যবসায়ী ও দাওয়াহ সেন্টারের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ।

উল্লেখ করা যেতে পারে, করোনা ভাইরাস সতর্কতায় রাজ্য তথা দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন জারি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু হঠাৎ এই লকডাউনের ফলে সমস্যায় পড়েছেন হাজারও দিনমজুর। ব্যতিক্রম নয় মেটিয়াব্রুজ এলাকাও। মেটিয়াব্রুজ, মহেশটোলা, কালীমন্দিরতলা এলাকার দিনমজুর, ভ্যান চালক, রিকশা চালক, নৌকাঘাটের মাঝিরা এই লকডাউনের সময়ে কঠিন সমস্যায় পড়েছেন। দুবেলা দুমুঠো অন্ন নিয়ে কার্যত চিন্তায় পড়েছেন তারা। ঠিক মানুষের এই বিপদের দিনে জাতধর্মের ঊর্ধ্বে উঠে মানুষের পাশে দাঁড়াতে তৎপর হয়েছেন মোহাম্মদ আলী মোল্লা ওরফে আনচু, তারিক ইকবাল, সালাউদ্দিন কয়াল, জানে আলম, শেখ কামীরুদ্দিন সহ এলাকার বিশিষ্টজনেরা। দাওয়াত সেন্টারের উদ্যোগে নিজেরাই তৎপর হয়ে একটি ৫০ জনের বিশেষ টিম তৈরি করে মানুষের খোঁজখবর নিয়ে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন তারা।

অন্যতম উদ্যোক্তা মোহাম্মদ আলী মোল্লা ওরফে আনচু জানান, লকডাউনের ফলে ভীষণ সমস্যায় পড়েছেন এলাকার দিনমজুর, ভ্যান চালক, রিকশা চালক, নৌকাঘাটের মাঝিরা। মানুষের এই বিপদের দিনে আমরা তাদের পাশে দাঁড়িয়েছি। ৫০ জনের একটি স্বেচ্ছাসেবী টিম তৈরি করে একেবারেই অসহায় পরিবারগুলোর খোঁজখবর নিয়ে আমরা তাদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছি। ইতিমধ্যেই এক হাজারেরও বেশি জনেরও কাছে চাল, ডাল আলু সহ নানান সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছি। আগামীতেও আমরা তাদের পাশে থাকবো। এদিকে বিপদের দিনে তাদের পাশে দাঁড়ানোয় মুসলিম ব্যক্তি, ব্যবসায়ীদের ধন্যবাদ দিতে ভুলেননি এলাকার বাসিন্দা মৌমিতা গায়েন, কমলা দেবী, মায়া গায়েন প্রমুখ মহিলারা। তারা জানান, কাজ কর্ম বন্ধ হয়ে আমরা কার্যত নিরুপায় হয়ে গেছিলাম। এই বিপদের দিনে প্রতিবেশী মুসলিম ব্যক্তিরা যেভাবে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।