নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: দেশের জন্য মুসলিমদের অবদান সব চেয়ে বেশি। সোমবার বাঁকুড়ার জেলার গোপীকান্তপুরের কামারগড়িয়া পশ্চিমপাড়ার জুনিয়র হাই মাদ্রাসায় জমিয়তে আহলে হাদিসের ‘শান্তি ও সম্প্রীতি’ সভায় সংগঠনের নেতারা এই মন্তব্য করেন। মাওলানা আব্দুল্লাহ সালাফি তাঁর বক্তব্যে বলেন, “মুসলিমরা দেশের জন্য বিরাট অবদান রেখেছে।আজ সেই মুসলিমদের দেশদ্রোহী বলা হচ্ছে। সারে জাাঁহাসে আচ্ছা লেখার জন্য কবি ইকবালের বিরুদ্ধে ফতোয়া দিয়েছে আলেমরা। মুসলিমরা আর কত দেশ প্রেমের পরীক্ষা দেবে?” তিনি আরও বলেন, “আমরা দাওয়াতী কাজ করতে বেশি পারিনি। সকলের মাঝে ইসলামের দাওয়াত পৌঁছাতে হবে। হিন্দু ভাইদের সাথে সুসম্পর্ক রাখতে হবে। সত্যের জয় একদিন হবে। ইসলামের আলোকে উজ্জীবিত করবেন আল্লাহ।”

এদিন জমিয়তে আহলে হাদিসের রাজ্য সম্পাদক আলমগীর সরদার বলেন, “আফরাজুলকে কী নিষ্ঠুর ভাবে পুড়িয়ে খুন করা হয়েছে। আখলাকের বাড়িতে গোরুর মাংস আছে বলে খুন করা হয়েছে। আমরা কোন দেশে বাস করছি? এতো হিংসা কেন? শান্তি ফেরাতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।” আলমগীর সরদার আরও বলেন, “আজ মানুষের বিবেক মারা গেছে। মানুষ মরলে দুঃখ লাগে না। কিন্তু মানুষের মনুষত্ব মারা গেলে দুঃখ লাগে। আজ কোন দল ক্ষমতায়? সরকার যদি এমন হয় তবে কে রক্ষা করবে মানুষকে?”

এদিন শান্তি ও সম্প্রীতি সভায় বক্তব্য রাখেন বন্দি মুক্তি কমিটির রাজ্য সম্পাদক ছোটন দাস, জমিয়তে আহলে হাদিসের নেতা শাইখ আইনুল হক, তাওহীদ আলম ফাইজি, সাংবাদিক মোকতার হোসেন মন্ডল প্রমুখ। জাগরণী পরিবেশন করেন হেরার আলো শিল্পীগোষ্ঠীর প্রধান ইমতিয়াজ উদ্দিন। সভাপতিত্ব করেন প্রবীণ শিক্ষক সামসুল আলম।