নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: রবিবার ২১শে জুলাই শহীদ দিবস উপলক্ষে আয়োজিত তৃণমূলের সভায় শেষ বক্তা হিসেবে বক্তব্য পেশ করেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা রাজ‍্যের মুখ‍্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তিনি তাঁর বক্তব্যের প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত শুধুই বিজেপিকে আক্রমণ করেই গেলেন। কিন্তু নতুন কোনো প্রতিশ্রুতি বা উন্নয়ন করার কোনো কথা ঘোষণা করেননি তিনি।

এদিন তৃণমূল সুপ্রিমো বিজেপিকে কটাক্ষ করে বলেন, বিজেপি চোরদের ও ডাকাতদের দল। কাটমানি প্রসঙ্গ টেনেও তিনি বলেন, বিজেপি কালোটাকা ফিরিয়ে দিক। বিজেপিকে কালোটাকা ফিরিয়ে দিতেই হবে। পঞ্চায়েত ও পৌরসভার ভোট ব‍্যালটে হবে বলেও এদিন ঘোষণা করেন মুখ‍্যমন্ত্রী মমতা বন্দ‍্যোপাধ‍্যায়। তবে তিনি তার বক্তব্যে শুধুই বিজেবিকে আক্রমণ করেছেন কিন্তু কোনো উন্নয়ন মূলক কথা বলেননি।

২১ শের মঞ্চ থেকে শুধু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপিকে আক্রমণ করেছেন তা নয়, সমস্ত বক্তারাই বা তৃণমূল নেতারাই বিজেপির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন। রাজ‍্যের পরিবহন মন্ত্রী সুভেন্দু অধিকারী বলেন, ইভিএমে ভোট হলে বিজেপি জিতে কিন্তু ব‍্যালটে ভোট হলেই আবার বিজেপি হারে। তিনি বিজেপিকে টার্গেট করে বলেন, বাংলার সংস্কৃতিকে যারা নষ্ট করতে চাইছে তাদের বিরুদ্ধে জোটবদ্ধ হয়ে লড়াই করতে হবে। তিনি বিভিন্ন উদাহরণ টেনে বিজেপিকে আক্রমণ করে বলেন, বিজেপি বাংলার সংস্কৃতির কিছুই জানেনা। যদি জানত তবে বীরভূম কে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মস্থান বলতোনা।

কলকাতা পৌরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম বিজেপিকে আক্রমণ করে বলেন, দেশে কখনও আচ্ছেদিন আসবে না, কারণ দেশের অর্থনীতি শেষ। এদিন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি তথা সাংসদ অভিষেক বন্দ‍্যোপাধ‍্যায় বলেন,
আগামী ২০২১ শের বিধানসভায় ২৫০ বেশি আসন নিয়ে আবার মুখ‍্যমন্ত্রী হবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বিজেপি কে বিঁধে বলেন, বিজেপি সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করে। কিন্তু তৃণমূল শান্তিপূর্ণ রাজনীতি করে। রবিবার ২১ শের সভামঞ্চ থেকে প্রত‍্যেক বক্তায় বিজেপির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দেন। কিন্তু কোনো প্রতিশ্রুতি বা উন্নয়নের কথা কেউই বলেননি।

তবে বিজেপি রাজ‍্যসভাপতি তথা মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষ তৃণমূল কে আক্রমণ করে বলেন, এবারের শহীদ দিবসে সবচেয়ে কম লোক এসেছে। যা ২৬ বছরের ইতিহাসে এমনটা হয়নি। ডিমভাত খায়য়েও সভায় লোক টানতে পারেনি তৃণমূল। তিনি কটাক্ষ করে আরও বলেন, আমাদেরকে যদি বলত তবে আমরা তৃণমূল কে লোক দিয়ে দিতাম।