নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, মুর্শিদাবাদ: স্কুলের মধ্যেই জাতপাতের ঘটনায় তোলপাড় হয়ে উঠেছিল মুর্শিদাবাদ। হিন্দু ও মুসলিম শিক্ষার্থীদের জন্য চলছিল আলাদা আলাদা মিডডেমিল রান্না! দুটি সম্প্রদায়ের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে খাবার পরিবেশনও হচ্ছিল পৃথক ভাবে। এমনই চিত্র ধরা পড়ায় রীতিমতো চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয় মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুর মহুকুমার সুতি থানার আহিরণ গ্রামপঞ্চায়েতের রামডোবা মাধ্যমিক শিক্ষাকেন্দ্র। সেই খবর শুক্রবার টিডিএন বাংলা সহ একাধিক মিডিয়ায় সম্প্রচারিত হতেই নড়েচড়ে বসলো প্রশাসন। আর আলাদা নয়, একসাথে বসেই মিডডেমিল খাবারের ব্যবস্থাও করলো ব্লক প্রশাসন। দীর্ঘদিন পর এক পাতে খাবার খেতে পেয়ে খুশি ছাত্রছাত্রীরা।

উল্লেখ্য, সুতির আহিরণ রামডোবা মাধ্যমিক শিক্ষাকেন্দ্র মোট ছাএছাএীর সংখ্যা ৩২৯ জন। তার মধ্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের ছাএছাএী রয়েছে ১২৪ জন। পাশাপাশি হিন্দু সম্প্রদায়ের ছাএছাএীর সংখ্যা ১৯৫। মাধ্যমিক শিক্ষাকেন্দ্রে মোট চারজন শিক্ষক ও একজন শিক্ষিকা রয়েছেন। একটি বিদ্যালয়ে একসঙ্গে ক্লাস চললেও টানা দশ বছর থেকে মিডডেমিল রান্না হচ্ছিল আলাদা আলাদা ভাবে। শুধু রান্নায় নয়, বিতরণ-খাওয়াদাওয়াও হচ্ছিল আলাদা আলাদা।

এবিষয়ে মাধ্যমিক শিক্ষাকেন্দ্রের প্রধান শিক্ষক জানান, দীর্ঘদিন ধরে মিডডেমিল খাবারের জন্য দুই সম্প্রদায়ের আলাদা আলাদা ব্যবস্থা থাকলেও আমরা আবার তাদের একত্রিতকরন করেছি।এখন থেকে সম্প্রীতি বজায় রেখে একসাথে মিডডেমিল খাবারে সামিল হবেন ছাত্রছাত্রীরা। আমরা খুব খুশি।