টিডিএন বাংলা ডেস্ক: সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী আগামী ৩১ জুলাই এনআরসি প্রকাশ করতে হবে। এই লক্ষকে সামনে রেখে রাজ্যের এনআরসি সমন্বয়কের কার্যালয় থেকে শুরু করে গৃহমন্ত্রক জেলা প্রশাসন, তুমুল প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। আর এমন আবহের মধ্যে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার সর্বোচ্চ আদালতে সীমান্ত এলাকার জেলা গুলোয় ২০ শতাংশ এবং অবশিষ্ট জেলায় ১০ শতাংশ চূড়ান্ত খসড়ার রি-ভেরিফিকেশন চেয়ে আবেদন করেছে।

পাশাপাশি যে সব জেলার জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার রাজ্যের গড় জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারের অধিক, সে সব জেলাও এনআরসির চূড়ান্ত খসড়ার ২০ শতাংশ রি-ভেরিফিকেশন করার প্রস্তাব করেছে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। আর এই আবেদনই এনআরসির সম্পূর্ণ প্রক্রিয়ার সামনে রহস্য সৃষ্টি করেছে। সুপ্রিম কোর্টে এনআরসি মামলার মূল শুনানি ছিল আজ। কিন্তু কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের আবেদনের পর বুধবারের শুনানি পিছিয়ে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট ডিভিশন বেঞ্চ। চলতি ঘটনাক্রমে সুপ্রিমকোর্ট যদি সরকারের আবেদন গ্রহণ করে তবে ৩১ শে জুলাই এনআরসি প্রকাশ পিছিয়ে যাওয়া স্বাভাবিক। এই যদি আবেদন গ্রহণ না করে তাহলে সরকারের আশঙ্কাকে সুপ্রিম কোর্ট পাত্তাই দিচ্ছে না, তা স্পষ্ট হবে বলে মনে করছেন আইনজীবীরা।

সূত্রের খবর, কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের এমন সিদ্ধান্তের সঙ্গে যাতে এনআরসি রাজ্য সমন্বয়ক প্রতীক হাজেলাও সহমত পোষন করেন, সে জন্য তাঁর উপরও চাপ সৃষ্টি করে চলেছে সরকার। সুপ্রিম কোর্টের এই ধরনের আবেদন আগে প্রতীক হাজেলা কে দিল্লি ডেকে নেয় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।