টিডিএন বাংলা ডেস্ক: আসামে জাতীয় নাগরিক পঞ্জির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ হওয়ার পর এরাজ্যেও প্রবল ভাবে এনআরসি’র আতঙ্ক শুরু হয়েছে। এনআরসি’র আতঙ্কে একের পর এক মৃত্যুর ঘটনা সামনে এসেছে। এবার এনআরসি’র তীব্র আতঙ্কে আত্মহত্যা করলেন খোদ হনুমানবেশী লোকসভা ভোটে বিজেপির হয়ে প্রচার করা সেই বিজেপি কর্মী। নদীয়ার রানাঘাটে জীবন্ত তিনি হয়ে উঠেছিলেন মোদি, বিজেপিকে ঘিরে তৈরি হওয়া প্রবল উন্মাদনার প্রতীক। নদীয়ার বগুলায় নিজের বাড়িতে সেই নিবাস সরকারের আত্মহত্যা হয়ে উঠল বিজেপি সরকারের ভয়ঙ্কর পদক্ষেপে শিহরিত সমাজের প্রমাণ।

বিজেপির প্রচার গাড়ির কনেটে গদাধারী হনুমান বেশে তিনি দাঁড়িয়ে আছেন – তার সেই ছবি হয়ে উঠেছিল জাতীয় পর্যায়ের সংবাদমাধ্যমগুলির চর্চার বিষয়। তখন এপ্রিলের তৃতীয় সপ্তাহ। রাজ্যে জোর প্রচার চলছে লোকসভা নির্বাচনের। রাণাঘাট কেন্দ্রের বিভিন্ন জায়গায় গদাধারী হনুমানবেশী নিবাস সরকারকে দেখা গেছিল বিজেপির প্রচার গাড়িতে। সারা দেশে সেই ছবি ছড়িয়ে পড়েছিল। ছবিটি ফেসবুকে দিয়ে গর্বিত পোস্ট করেছিলেন স্বয়ং বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

বৃহস্পতিবার বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেছেন সেই নিবাস সরকার। নরেন্দ্র মোদি, দিলীপ ঘোষের মতোই আরএসএস কর্মী তিনি। এই বছর পঞ্চাশের মানুষটির দুটি নাবালক সন্তান আছে, আছেন স্ত্রী। তিনি আত্মঘাতী হয়েছেন কেন? গ্রামবাসীরা জানাচ্ছেন, এনআরসি’তে আসামের অবস্থা মেনে নিতে পারছিলেন না তিনি। অনেকের প্রশ্নের মুখে জবাব দিতে পারছিলেন না। এনআরসি নিয়ে নিজেও কিছুটা বিধ্বস্ত ছিলেন। আত্মহত্যা সেই কারণেই।