নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: বাংলায় এনআরসি করতে দেওয়া হবে না। এনআরসি রখতে যতদূর যেতে হয় ততদূর যাব। বিধানসভায় এনআরসি নিয়ে আলোচনায় এইভাবে নিজের প্রতিক্রিয়া জানালেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, কটা আসন পেয়ে যা ইচ্ছা তাই করতে চাইছে বিজেপি। বাংলার সংস্কৃতি জানেনা, বাংলার কৃষ্টি জানেনা। বিভাজনের রাজনীতির সৃষ্টি করতে চাইছে বাংলার বুকে। বাংলার মানুষ কোন দিন তা মেনে নেবে না।

একইসঙ্গে এই দিনের বক্তব্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, যারা দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছে তাদের পরিবারের সদস্যদের এনআরসি তালিকা থেকে বাদ দিয়েছে বিজেপি। এক লক্ষ গোর্খাকে তালিকা থেকে বাদ দিয়েছে। পাহাড়ের বিধায়কদের উদ্দেশ্য করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন আরও বেশি করে বিজেপিকে ভোট দিন তাহলে আরও বুঝতে পারবেন। এনআরসি নিয়ে বিজেপি নীতির তীব্র সমালোচনা করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরো বলেন, জাতি-ধর্ম-বর্ণের ভিত্তিতে মানুষে মানুষে বিভাজন তৈরী করতে চাইছে। হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে বিভাজন তৈরী করতে চাইছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিষ্কার বার্তা সমস্ত রাজনৈতিক দলকে এক জায়গায় আসতে হবে। একসঙ্গে দেশজুড়ে প্রতিবাদ জানাতে হবে।

কেন্দ্রের সমালোচনা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, দেশের অর্থনীতি ধ্বংস হচ্ছে। রেল থেকে শুরু করে একাধিক কেন্দ্রীয় সংস্থা বিলগ্নীকরণ এর পথে। সেদিকে কোন নজর না দিয়ে দেশে জাতি দাঙ্গা তৈরি করার চেষ্টা করছে কেন্দ্র।

এনআরসি নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কন্ঠে উঠে এসেছে জম্মু-কাশ্মীর এবং চিদাম্বরাম প্রসঙ্গ। রাজনৈতিক বন্দী হিসেবে পি চিদাম্বরমকে আরো বেশি মর্যাদা দেওয়া বিজেপির উচিত ছিল বলে বিধানসভায় দাবি তোলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি বন্দুকের নলের সামনে জম্মু-কাশ্মীরের মানুষদের ভয় দেখিয়ে রাখা হয়েছে বলে বিধানসভায় অভিযোগ তোলেন তিনি। সব মিলিয়ে এনআরসি নিয়ে এক দিকে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানো অন্য দিকে বিজেপি সরকারের তীব্র সমালোচনা এদিন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশাপাশি আব্দুল মান্নান সুজন চক্রবর্তী সহ অন্যান্য বিরোধী বিধায়করা তীব্র সমালোচনা করেন কেন্দ্রের এনআরসি নীতির। তবে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি তালিকা প্রকাশের পক্ষে বক্তব্য রাখেন বিজেপি বিধায়করা।