রেবাউল মন্ডল, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: বসন্ত উৎসবে মেতেছে গোটা বাংলার হিন্দু সমাজ। কিন্তু ওদের মুখে রং নেই, হাসি নেই। ‘রংহীন আমরা’, ‘বিবর্ণ বসন্ত’ রক্তজল ঝরা চোখের ছবি সম্বলিত প্লাকার্ড হাতে এই চৈত্রের ভরদুপুরেও ওরা ঠাঁই বসে কলকাতার রাস্তায়। ওদের দুঃখ একটাই আজকের এই খুশির দিনেও ওরা বন্ধু বান্ধবী পরিবার পরিজনদের রং মাখাতে পারলো না। ২২দিনের টানা অনশনে ওদের মুখগুলি সব ফিকে হয়ে গেছে। অসুস্থের সংখ্যাটাও ষাট ছড়িয়েছে।

এসএসসি উত্তীর্ণ অর্পিতা দাসের কথায়, এবছর আমাদের বসন্তোৎসবটা বিবর্ণ হয়ে গেল। প্রতি বছর এই দিনটিতে বন্ধু পরিবার পরিজনদের সাথে আনন্দে কাটাই। রং খেলি। আজ আমাদের জীবনের রং নেই, আনন্দ নেই। তবুও এই শুকনো মুখেই আমাদের লড়াইটা চালিয়ে যেতে চাই। চাকরি না নিয়ে বাড়ি ফিরছি না বলেও দৃঢ় প্রতিজ্ঞ অর্পিতা।

অনশন মঞ্চে শুয়েই চাকরিপ্রার্থী তানিয়া শেঠ ক্ষীণ কন্ঠে টিডিএন বাংলাকে বলছিলেন, আজকের হোলির দিনে সবাই যখন হোলির রঙে রঙিন হচ্ছে তখন আমাদের জীবন থেকে ক্রমশই যেন সব রং হারিয়ে যাচ্ছে। দিন দিন পরিস্থিতি এমন হচ্ছে হয়তো আমাদের রক্ত দিয়েই জীবনের শেষ হোলি খেলতে হবে।

প্রতিনিয়ত অসুস্থ হয়ে কেউ না কেউ হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। হাত ফুটো করে ফুটেছে স্যালাইনের সুঁচ। বেরুচ্ছে তরতাজা রক্ত। কিন্তু এভাবে আর কতদিন ঝরবে সফলভাবে এসএসসি উত্তীর্ণ চাকরিপ্রার্থীদের রক্ত? ওরা কি আর বাড়ি ফিরতে পারবে না? সন্তানদের পথ চেয়ে বাবা মায়ের প্রতীক্ষা শেষ হবে কবে? প্রশ্ন অনেক। উত্তর দেবে ভবিষ্যৎ।