নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, ভাঙড় : কয়েক দিনের শান্ত ভাঙড় আবারও চেনা ছন্দে ফিরে এলো। থমকাল পাওয়ার গ্রিডের কাজ।

স্হানীয় সূত্রের খবর, প্রশাশনের বিরুদ্ধে চুক্তি ভঙ্গের অভিযোগ তুলে ফের ভাঙড়ে পাওয়ার গ্রীড চত্বরে সব স্টেশনের  কাজ বন্ধ করে দিলো আন্দোলকারীরা।

আজ সকালে ভাঙ্গড়ের মাছিভাঙা এলাকার তৈরী হওয়া পাওয়ার গ্রীড চত্বরে সাব স্টেশনের কাজ বন্ধ করে দিলো আন্দোলকারীরা। আন্দোলকারীদের অভিযোগ, দু-বছর ধরে এলাকার মানুষের আন্দোলনের মুখে পড়ে প্রশাসন পাওয়ার গ্রীড এর কাজ বন্ধ করে দেয়। শুরু হয় সব স্টেশনের কাজ। পাশাপাশি সরকার প্রতিশ্রুতি দেয় এলাকার উন্নয়ন করবে। এলাকার রাস্তাঘাট, আলো, পানীয়, জল সহ নানা উন্নয়নের কাজ করবে। রাজ্য সরকার যে চুক্তি দিয়ে ছিলো সেই চুক্তি মতো কাজ করছে না, সেই অভিযোগ তুলে আজ  কাজ বন্ধ করে দেয় আন্দোলনকারীরা।

প্রসঙ্গত, গত দু বছর পর কয়েক মাস আগে এই পাওয়ার গ্রীড নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে ওঠা এই এলাকা শান্ত হয়। আন্দোলনে গুলি বিদ্ধ হয়ে মরতে হয়েছিল তিন আন্দোলকারীকে। সেই সময় আন্দোলকারীদের দাবী ছিল পাওয়ার গ্রীড বন্ধ করে সাব স্টেশন করা হোক কিন্তু সেই সঙ্গে এলাকার রাস্তা, পানীয় জল, আলোর ব্যবস্থা করা হোক। চলতি বছরের আগস্ট মাসে আন্দোলকারীদের সঙ্গে টালবাহানা করে প্রশাশন এলাকার রাস্তা,পানীয় জল এর সঠিক পরিষেবা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে আন্দোলকারীরা আন্দোলন বন্ধ রাখে।

সেই মতো পাওয়ার গ্রীড চত্বরে সাব স্টেশন তৈরী কাজ শুরু হয়। আন্দোলকারীদের দাবী প্রশাসন  সাব স্টেশন তৈরীর সঙ্গে সঙ্গে এলাকার রাস্তা, পানীয় জল এর ব্যবস্থা করবে বলে করছে না, শুধু সাব স্টেশন তৈরী করে নিচ্ছে। সাব স্টেশনের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে নিচ্ছে সরকার। আজ এই কাজ বন্ধের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে কাশিপুর থানার পুলিশ এবং বাড়ুইপুর জেলা পুলিশের বিশাল বাহিনী যায়।পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ শুরু করে আন্দোলকারীরা।

পুলিশ আন্দোলকারী দের বার বার বোঝানোর চেস্টা করলেও ব্যর্থ হয়। এখনো কাজ বন্ধ করে রেখেছে আন্দোলকারীরা।

আবার এই ভাঙ্গড় অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠার আশঙ্কা করেছে এলাকাবাসীরা।এ বিষয়ে জমি কমিটির নেতা মির্জা হাসান বলেন, “জেলা প্রশাসনের সাথে আলোচনার মাধ্যমে ঠিক হয়েছিল ভাঙড়ের সামগ্রিক উন্নয়ন হবে। সেসব কিছুই হয়নি। এলাকার উন্নয়ন না করে শুধু পাওয়ার গ্রিডের উন্নয়ন করা যাবে না। তাইমানুষ ক্ষিপ্ত হয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন।” তিনি আরও বলেন, “প্রশাসন যদি মনে করে জোর করে কাজ করবে তাহলে আবার ভাঙড়ে আগুন জ্বলবে।”