সেখ সাদ্দাম হোসেন, টিডিএন বাংলা, সীতাপুর: ২০১২র ১২ই ডিসেম্বর প্রতিষ্ঠিত আল-ফারাহ মিশন এই কদিনেই শিক্ষা ক্ষেত্রে একটা আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। বুধবার প্ৰতিষ্ঠা দিবসে মিশনে পাঠরত ছাত্রদের শিক্ষার সঠিক বিকাশের কথা মাথায় রেখে স্মার্ট ক্লাস শুরু করার ঘোষণা দেন মিশনের সাধারণ সম্পাদক পীরজাদা তামিম সিদ্দিকী। প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে এক মিলাদুন্নবী অনুষ্ঠানে তিনি মিশনের আগামীদিনের পদক্ষেপের বিষয়ে বলতে গিয়ে একথাই বলেন। পীরজাদা সাহিম সিদ্দিকী, পীর দৌহিত্র সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন, কবি ও সাংবাদিক মোকতার হোসেন মন্ডল সহ আরও অনেক বিশিষ্ঠ জনের উপস্থিতিতে তিনি বলেন, “শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষা ছাড়া জাতি মেরুদন্ডহীন সরীসৃপ প্রাণীর মতই উঠে দাঁড়াতে পারেনা। তাই স্বাধীনতা সংগ্রামী যুগসংস্কারক পীর আবুবকর সিদ্দিকী(রহঃ) অক্লান্ত পরিশ্রম করে বাংলার কোনায় কোনায় শিক্ষার আলো পৌঁছে দেবার জন্য অসংখ্য মাদ্রাসা, স্কুল প্রতিষ্টা করেছিলেন। আমি তার বংশধর হিসাবে বড়ভাই ও আব্বাজানের সহযোগিতায় একটা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে গড়ে তোলার চেষ্টা করেছিলাম মাত্র। রাসূল(সঃ) শিক্ষা ক্ষেত্রে সব থেকে বেশি জোর দিতে বলেছেন। তাই রাসূলের আদর্শ ও দাদাহুজুরের দেখানো পথেই এই মিশনকে গড়ে তোলা হয়েছে বলে খুব অল্প দিনেই সাফল্য লাভ করেছে।” আর যার সহযোগিতায় এই মিশনের কর্মকান্ড সাফল্য লাভ করেছে সেই পীরজাদা সাহিম সিদ্দিকী অতীতের স্মৃতিচারনা করে বলেন, “আব্বাজান হুজুর কেবলার স্বপ্ন আজ সফলতার পথে। এই মিশনের সাফল্যই বলে দেয় এর ভবিষ্যত।” উপস্থিত অভিভাবকদের বলেন, “সন্তানকে আদর্শ শিক্ষায় শিক্ষিত করুন। দেশ ও জাতির ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল করুন। আর ছাত্রদের উদ্যেশ্যে বলবো নিজেরা দায়িত্ব নিয়ে পড়াশোনা করো।” পীর দৌহিত্র সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন বলেন শিক্ষার গুরুত্বর কথা বলতে গিয়ে বলেন, “ইসলামে সব থেকে শ্রেষ্ঠ উপাসনা হল নামাজ। কিন্তু কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে ‘পড়ো’ কথার মধ্যে দিয়েই। তাই সকলের প্রয়োজন সঠিক গুণমান সম্পন্ন শিক্ষা গ্রহন করা।” কবি মোকতার হোসেন মন্ডল মিশন ছাত্রদের সৎ চারিত্রিক গুন সম্পন্ন আদর্শ মানুষ হবার কথা বলেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবী শেখ মকসুদ, হাজী মইদুল ইসলাম, মুজাদ্দেদ মিশনের কেন্দ্রীয় সদস্য সেখ জিয়ারুল, মিশনের সহ সম্পাদক হাজী সিরাজুল ইসলাম সহ এলাকার সমাজসেবী ও মিশন হিতাকাঙ্খী বুদ্ধিজীবী গন। সকাল থেকেই মিশনের ছাত্রদের মাঝে ক্বেরাত, গজল ও তাৎক্ষণিক বক্তৃতার প্রতিযোগিতার মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। কোরআন পাঠের সাথে মাঝে মাঝে ইসলামিক সংগীত পরিবেশন অনুষ্ঠানের মাত্রাকে আরো বাড়িয়ে দিয়েছিল। এদিন আল ফারাহ মিশনের বাৎসরিক লিটিল ম্যাগাজিন “কিশোর আলো”-র আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন করেন পীরজাদা সাহিম সিদ্দিকী। এর সঙ্গেই ছিল আলিম(মাধ্যমিক)ছাত্রের বিদায় সংবর্ধনা। আনন্দঘন পরিবেশ বেদনাবিথুর হয়ে ওঠে বিদায়ী ছাত্রদের বিদায়ী সংগীত পরিবেশনের সময়। শেষে প্রতিযোগিদের পুরস্কার বিতরণ ও বিশ্ব শান্তি ও মঙ্গল কামনা ও মিশনের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করে দুয়া চাওয়া হয়।