টিডিএন বাংলা ডেস্ক : গুজব ছড়ালে কড়া ব্যবস্থা নেবে পুলিশ প্রশাসন। সোমবার মগরাহাটে সর্বদলীয় সভায় শান্তি, শৃঙ্খলা বজায় রাখার আহ্বান জানিয়ে এই হুঁশিয়ারি দিয়েছেন প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা। মগরাহাট ২নম্বর ব্লকে প্রশাসনের উদ্যোগে এদিন সর্বদলীয় সভা ডাকা হয়। এই সভায় ডায়মন্ডহারবারের মহকুমাশাসক, মহকুমা পুলিশ আধিকারিকসহ পুলিশ প্রশাসনের আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরাও ছিলেন। মগরাহাটে চোর, ছেলেধরার গুজবে পিটুনির জেরে রবিবার ২জনের মৃত্যু হয়েছে। এখনও আশঙ্কাজনক অবস্থায় ডায়মন্ডহারবার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন আক্রান্ত ২যুবক। মৃতদের মধ্যে রোকিয়া বেওয়া নামে এক মহিলাও রয়েছেন। রবিবার রাতে ডায়মন্ডহারবার হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর বাড়ি মল্লিকপুরে বলে জানা গেছে। বাড়ি বাড়ি ভিক্ষা করতেন তিনি। মগরাহাট থানার মূলটি চাঁদপুর এলাকায় বাড়িতে ঢুকে ভিক্ষা করতে গেলে তাঁকে ছেলেধরা সন্দেহে নির্মমভাবে মারধর করেন স্থানীয় মানুষ। আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে রাতে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়।
অপরদিকে মূলটি অঞ্চলের বানিবেড়িয়ায় এক ফেরিওয়ালা যুবককে চোর সন্দেহে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। মগরাহাটের আতাসুরা এলাকায় একইভাবে চোর গুজব ছড়িয়ে দুই যুবককে প্রহার করে স্থানীয় মানুষেরা। তাঁরা এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন ডায়মন্ডহারবার হাসপাতালে। দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার মগরাহাট শুধু নয়, ফলতা, ডায়মন্ডহারবার, কুলপি থেকে কাকদ্বীপ জেলার বিস্তীর্ণ এলাকায় গুজব ছড়ানোর চক্রান্ত চলছে। আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। এই পরিস্থিতিতে পুলিশ, প্রশাসন সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার আহ্বান জানিয়েছেন। পরিস্থিতির মোকাবিলায় এদিন মগরাহাট ২ ব্লকে সর্বদলীয় সভাও ডাকা হয়। প্রকাশ্য দিবালোকে আইন হাতে তুলে নিয়ে নৃশংসভাবে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় উদ্বিগ্ন পুলিশ প্রশাসন কড়া হাতে দমন করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। গুজব রটালেই কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিভিন্ন জায়গায় সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে এদিনও পুলিশের উদ্যোগে মাইক প্রচার করা হয়। পুলিশের টহলদারি ও নজরদারির ব্যবস্থাও করা হয়।
মগরাহাটসহ জেলার বিভিন্ন জায়গায় গুজব ছড়ানোর ঘটনায় মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানাতে সোমবার সিপিআই(এম) দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা সম্পাদক শমীক লাহিড়ী এক প্রেস বিবৃতিতে বলেছেন, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিভিন্ন স্থানে উদ্দেশ্যমূলকভাবে গুজব ছড়ানো হচ্ছে। জাত, ধর্মের ভিত্তিতে মানুষকে ভাগ করতে। হিংসাত্মক কাজে মানুষকে উসকানি দেওয়া হচ্ছে। হিংসাত্মক বিভাজনের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। গুজবে কান না দিয়ে জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকুন। জেলায় শান্তি, আইন শৃঙ্খলা বজায় রাখতে এদিন তিনি বারুইপুর, ডায়মন্ডহারবার ও সুন্দরবন পুলিশ জেলার সুপারকে চিঠি দিয়ে আবেদন জানিয়েছেন।