টিডিএন বাংলা ডেস্ক: লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফাতেই মানুষ দিদিকে কড়া ইঙ্গিত দিয়ে দিয়েছেন। দক্ষিণ দিনাজপুরে বুনিয়াদপুরের সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিঁধলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তাঁর কথায়, দ্বিতীয় দফায় ভোটের যে রিপোর্ট আসছে, তাতে দিদির ঘুম ছুটেছে।

এবার প্রথম থেকে বাংলাকে পাখির চোখ করেছেন মোদী-শাহরা। সেই মতো বারবার এই রাজ্যে ছুটে এসেছেন তাঁরা। মমতাকে নিশানা করে বারবার তাঁর অস্ত্রে শান দিয়েছেন মোদী। এদিনও সেই ধারা অব্যাহত রাখলেন। মমতাও মোদী বিরোধিতার সুর বহাল রেখেছেন।

এদিন মোদী বলেন, মিডিয়ায় দেখেছি আমাদের ভাইবোনরা কীভাবে টিএমসির গুন্ডাদের শিক্ষা দিয়েছে। এভাবেই ওঁদের প্রতিরোধ করুন।

তিনি স্বভাবোচিতভঙ্গিতে বলেন, মমতা দিদি পশ্চিমবঙ্গে যা করেছেন তাতে ওঁকে ভবিষ্যত মাফ করবে না। মা মাটি মানুষের নামে ধোঁকা দিয়েছেন। একসময় ওঁকে দেখে আমিও ভুল করেছিলাম টিভিতে ওঁকে যখন দেখতাম তখন মনে হয়েছিল উনি গরিব মানুষের জন্য লড়াই করছেন। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর সেই ভুল ভেঙেছে। গরিবের টাকা নারদা, সারদা, রোজভ্যালি লুটে নিয়েছে।

রাজ্যের কর্মসংস্থান নিয়েও খোঁচা মারেন মোদী। বলেন, পরীক্ষায় যাঁরা পাস করেছেন তাঁদের চাকরি দেন না এই সরকার। গুন্ডাদের দেওয়ার টাকা রয়েছে। ডিএ দেওয়ার টাকা নেই।

এখানেই থেমে না থেকে তিনি আরো বলেন, পশ্চিমবঙ্গের মডেল গোটা দেশে লাগু করবেন দিদি। এই স্বপ্নই এখন দেখছেন তিনি। মমতা বারবার বলেছেন, দিল্লির সরকার গড়ার ক্ষেত্রে তাঁর দলই নির্ণায়ক শক্তি হবে। এই কারণে মোদীকে এদিনও বলতে হল মমতা উন্নয়নের স্পিড ব্রেকার।

সন্ত্রাস দমন নিয়েও সওয়াল করেন মোদী। তাঁর কথায়, দেশে এখন এমন একটি মডেল তৈরি হয়েছে যেখানে জঙ্গিরা ভয় পাবে। মমতা দিদি এর উল্টো কাজ করছেন। মনে করে দেখুন খাগড়াগড়ের তদন্ত কে রুখতে চেয়েছিলেন! ভারত এখন জঙ্গিদের ঘরে ঢুকে মারছে। পাকিস্তানে ঢুকে সেনা এখন জঙ্গিদের মারছে। আর দিদি প্রমাণ চাইছেন। সেনার ওপরে ভরসা নেই!

মমতা বারবার বলেছেন, এই রাজ্যে এনআরসি হতে দেব না। এই প্রসঙ্গে মোদী ফের বলেন, ক্ষমতায় এলে অনুপ্রবেশকরীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নাগরিকত্ব বিল নিয়ে মানুষকে ভুল বোঝানো হচ্ছে।