টিডিএন বাংলা ডেস্ক: গত সপ্তাহে ব্রিটেনের সংসদ ভবনে মুসলিম বিরোধী ভাষণের জন্য বাংলার এক চরম দক্ষিণপন্থী হিন্দুত্ববাদী নেতা এবং তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো ব্রিটিশ কনজারভেটিভ দলের সাংসদ ব্রিটিশ মিডিয়ার কঠোর সমালোচনার মুখে পড়ল।
ব্রিটেনের প্রায় সবক’টি প্রথম সারির সংবাদ পত্রেই ব্রিটিশ সাংসদ বব ব্লাকম্যান এবং পশ্চিমবঙ্গের হিন্দু সংহতির সভাপতি তপন ঘোষের কড়া সমালোচনা করা হয়েছে।
জানা গিয়েছে, গত ১৮ ই অক্টোবর ওয়েস্টমিনস্টারের হাউস অব কমন্সের ১২ নং ঘরে তপন ঘোষ তাঁর তীব্র মুসলিম বিরোধী ভাষণ দেন।

ওই ভাষণের পরিপ্রেক্ষিতেই ব্রিটিশ মিডিয়ার কোপে পড়েছেন এই দু’ই ব্যক্তি। তপন বাবু তাঁর কাছে ১৫ মিনিটের ভাষণে ইসলামী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ‘হিন্দু প্রতিরোধ বাহিনী (হিন্দু ডিফেন্স ফোর্স)’ গড়ার ডাক দেন। এর পাশাপাশি তিনি শ্রোতাদের কাছে আবেদন করে বলেন, তাঁরা যেন সেদেশের সরকার ও পশ্চিম ইউরোপের অন্য দেশগুলির প্রশাসনের কাছে ভারতের মাদ্রাসাগুলিতে সাহায্য পাঠানো বন্ধ করার দাবি জানান।

ব্রিটেনের ন্যাশনাল কাউন্সিল অব হিন্দু টেম্পলস আয়োজিত ‘টলারেটিং দ্য ইনটলারেন্ট’ বিষয়ক বক্তৃতায় মূল বক্তা হিসেবে তপন ঘোষের বক্তব্য এর আগেও তীব্র মুসলিম বিরোধী ছিল বলে সেদেশের সংবাদ মাধ্যমগুলি উল্লেখ করেছে। এই সব প্রতিবেদনে এ কথাও উল্লেখ করা হয়েছে যে, এর আগেও রাষ্ট্রপুঞ্জের কাছে এভাবেই মুসলিম বিরোধী বক্তব্য রেখে ছিলেন তপন বাবু। তিনি রাষ্ট্রপুঞ্জের কাছে এমন আবেদনও করেছিলেন যে, অবিলম্বে বিশ্বজুড়ে মুসলিমদের জন্মহার রোধ করা উচিত। কারণ হিসেবে তিনি যুক্তি দেখান, ব্রিটিশ মুসলিমরাও শ্বেতাঙ্গ শিশুদের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে। এই প্রসঙ্গে রোহিঙ্গা ইস্যুতেও সরব হয়ে তপন ঘোষ বলেন, মায়ানমার থেকে যেসব রোহিঙ্গা পশ্চিমী দেশগুলিতে আশ্রয় নিচ্ছেন তাঁদের অবিলম্বে নিজেদের ধর্ম পরিত্যাগ করার জন্য বল প্রয়োগ করা উচিত।(সৌজন্যে-দৈনিক যুগশঙ্খ)