টিডিএন বাংলা ডেস্ক : পুলওয়ামার হামলা নিয়ে মোদী সরকারকে নিশানা করলেন তৃণমূল যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। পরের প্রশ্ন বাণে বিদ্ধ করলেন কেন্দ্রকে। তাঁর প্রশ্ন, কার বাড়ির ফ্রিজে কী রয়েছে, তা ওরা জেনে যায়! অথচ কাশ্মীরে ৩৫০ কেজি আরডিএক্স ডুকে গেল, তা ওরা জানল না?”

এখানেই থেমে না থেকে তিনি আরো বলেন, আমরা স্তম্ভিত, যাঁরা দেশ রক্ষা করেন, তাঁদের কেন্দ্র বাঁচাতে পারে না। তৃণমূলের এই যুব নেতা সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করেন। তাঁর কথায়, নোটবাতিলের সময় প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, জঙ্গি হানা বন্ধ হবে। কোথায় কী হল? চার দিন আগেই জঙ্গি হানা হল। ওরা ইডি, সিবিআই নিয়ে এত মাথা না ঘামিয়ে, সেনা দেখলে এই ঘটনা ঘটত না। কেন একথা বললেন তৃণমূল যুব নেতা? কিছুদিন আগেই সিবিআই-কলকাতা পুলিশ দ্বৈরথের সাক্ষী থেকেছে দেশ। সেই কারণে সিবিআই নিয়ে মোদী সরকারকে খোঁচা দিতে ছাড়লেন না অভিষেক।

তৃণমূল নেত্রী মমতাও এদিন প্রশ্ন তোলেন, গোয়েন্দ রিপোর্ট থাকা সত্ত্বেও কেন এমন হামলা হল? অভিষেকও পিসির সুরে নিরাপত্তার গাফিলতির কথা বলেন। কাশ্মীরে ৩৫০ কেজি আরডিএক্স ডুকে গেল কেন তা আগাম জানা গেল না প্রশ্ন তৃণমূলের যুব নেতার। একইসঙ্গে তিনি আরো বলেন, নিজের ছেলে হলে, ভবিষ্যতে তিনি তাকে সেনাবাহিনীতেই পাঠাবেন।
অন্যদিকে, বিজেপি, আরএসএস-কে কটাক্ষ করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করেন, আরসএস, ভিএসপি, বিজেপি  সাম্প্রদায়িক হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করছে।  বেহালা, বনগাঁ ও শ্রীরামপুরে এরকম হামলা হয়েছে।

পুলিসকে এবিষয়ে জিরো টলারেন্’ নীতিতে চলার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, পুলিসকে বলেছি, কোথাও এরকম কোনও ঘটনা ঘটলে কড়া হাতে তার মোকাবিলা করতে। তিনি বলেন, সন্ত্রাসবাদের  কোনও ধর্ম হয় না, সন্ত্রাসবাদীদের কোনও জাত নেই, রাজনৈতিক মতাদর্শ নেই।

Advertisement
mamunschool