কৌশিক সালুই, টিডিএন বাংলা,  বীরভূম: গেরুয়া ঝড় সামলে বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রে জয়ী তৃণমূল কংগ্রেস, জয়ের হ্যাটট্রিক শতাব্দি রায়ের।  কার্যত কঠিন লড়াইয়ে বিজেপি প্রার্থী দুধ কুমার মন্ডলকে  পরাজিত করলেন তিনি। একতরফাভাবে সংখ্যালঘু ভোটই বাজিমাত তৃণমূলের। এই জয়কে উন্নয়নের বলে জানিয়েছেন  জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল অন্যদিকে বিজেপি প্রার্থী বলেছেন, তৃণমূলের সন্ত্রাসের কাছে হারতে হলো।

গণনা শুরুর  প্রায় প্রথম থেকেই প্রতি রাউন্ডেই এগিয়ে থেকে জয়লাভ করলেন বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী শতাব্দী রায়। বিজেপি প্রার্থী দুধ কুমার মন্ডলকে ৮০ হাজারের বেশি ভোটে পরাজিত করলেন তিনি। বিগত লোকসভা নির্বাচনের তিনি ৬৭ হাজার ভোটে সিপিএম প্রার্থীকে পরাজিত করে জয়ী হয়েছিলেন। ২০০৯ সাল থেকে টানা তিনবার অর্থাৎ হ্যাটট্রিক হল লোকসভা নির্বাচনে।

তৃণমূল বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রের মুরারই ,হাসন, নলহাটি এবং সাঁইথিয়া বিধানসভা এলাকায় লিড পেয়েছে অন্যদিকে বিজেপি রামপুরহাট সিউড়ি এবং দুবরাজপুর বিধানসভায় লিড পেয়েছে। সংখ্যালঘু অধ্যুষিত মুরারয় বিধানসভায় প্রায় ৬০ হাজারেরও বেশি ভোট পেয়েছেন শতাব্দি রায়। ওই বিধানসভা কেন্দ্রের ব্যবধান কার্যত জয় নিশ্চিত করেছে শতাব্দীর।

দুটি ইভিএম খারাপ থাকায় ভিভি প্যাড এর কাগজ গোনা হয় এছাড়াও সাতটি বিধানসভার পাঁচটি করে ভিভি প্যাড এর কাগজ গণনা করা হয়। এদিন সকাল বেলায় শতাব্দি রায় সিউড়ি রামকৃষ্ণ শিল্প বিদ্যাপীঠের গণনা কেন্দ্রে আসেন। একটু বেলার দিকে তিনি সিউড়ির দলীয় কার্যালয়ে চলে যান। জয় নিশ্চিত হতে সন্ধ্যেবেলায় তিনি গণনা কেন্দ্রে আসেন। শতাব্দী রায় বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়,জেলায় অনুব্রত মণ্ডলের সংগঠন এবং বীরভূমের মানুষের জন্য এই জয় হয়েছে। টানা তৃতীয়বার জয়ের ফলে আরও দায়িত্ব বেড়ে গেল।

অনুব্রত মণ্ডল বলেন, জেলা যে উন্নয়ন করা হয়েছে তার জন্য আমরা জয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলাম। জেলার মানুষকে ধন্যবাদ তৃণমূলের উপর ভরসা রাখার জন্য। অন্যদিকে বিজেপির পরাজিত প্রার্থী দুধ কুমার মন্ডল বলেন, সংখ্যালঘু অধ্যুষিত মুরারই এলাকায় ব্যাপক সন্ত্রাস করেছে বহু বিজেপির কর্মী সমর্থক কে ভোট দিতে দেয়নি। তার জন্য এই পরাজয় হল। তবে  আমরা বিপুলসংখ্যক মানুষের সমর্থন পেয়েছি।