টিডিএন বাংলা ডেস্ক: রাজ্যের সংখ্যালঘু ছেলেমেয়েদের শিক্ষায় এগিয়ে নিয়ে যেতে ‘ঐক্যশ্রী’ প্রকল্পের মাধ্যমে স্কলারশিপ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার। এর জন্য ৬১৬ কোটি বরাদ্দ করেছে নবান্ন। আজ থেকে ‘ঐক্যশ্রী’ প্রকল্পের মাধ্যমে স্কলারশিপ পেতে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। পারিবারিক আয়ের ঊর্ধ্বসীমা ২লক্ষ টাকা। আবেদনের শেষ তারিখ চলতি বছরের ১৫ সেপ্টম্বর।

উল্লেখ্য, প্রতিবছরই সংখ্যালঘু ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার জন্য স্কলারশিপ দিয়ে থাকে কেন্দ্রীয় সরকার। জুলাই-আগস্ট মাসে সেই প্রক্রিয়া শুরু হয়। পুরো প্রক্রিয়াটি নিয়ন্ত্রিত হয় পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু উন্নয়ন বিত্ত নিগমের মাধ্যমে। বিগত কয়েক বছরে রাজ্যে ৩০ লাখের বেশি ছাত্রছাত্রী স্কলারশিপ-এর জন্য আবেদন করলেও, বাস্তবে ১৪ লাখের বেশি ছাত্রছাত্রীকে স্কলারশিপ দেওয়া হয় না বলে অভিযোগ। ফলে স্কলারশিপের প্রতি ভরসা হারিয়ে অনীহায় ভুগছে বেশিরভাগ ছাত্রছাত্রী। কিন্তু, কেন্দ্র সংখ্যালঘু ছেলেমেয়েদের বঞ্চিত করলেও, রাজ্য সরকার বঞ্চিতদের পাশে দাঁড়ায়। কিন্তু তাতেও কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ ওঠে।

এই অবস্থায় রাজ্যের সংখ্যালঘু ছাত্রছাত্রীদের পাশে দাঁড়াতে রাজ্য সরকার আলাদাভাবে স্কলারশিপ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সম্প্রতি মন্ত্রী সভার বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয় নবান্ন। কয়েকদিন আগে মাদ্রাসার কৃতী ছাত্রছাত্রীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ‘ঐক্যশ্রী’ প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই প্রকল্পের কথা ঘোষণার কয়েকদিনের মধ্যেই সেই প্রক্রিয়া শুরু হয়ে রাজ্যে।

বিত্ত নিগমের চেয়ারম্যান পিবি সেলিম জানিয়েছেন, ‘ঐক্যশ্রী’ প্রকল্পের আবেদন প্রক্রিয়া খুবই সহজ-সরল করা হয়েছে। এই প্রকল্পের সুবিধা যাতে সমস্ত সংখ্যালঘু ছাত্রছাত্রীরা নিতে পারে তার সমস্তরকম ব্যবস্থা করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, প্রি ও পোস্ট ম্যাট্রিক এবং মেরিট কাম মিনস বিভাগে একজন ছাত্রকে কেন্দ্রীয় সরকার যে স্কলারশিপ দেয়, তার থেকে দশ শতাংশ বেশি স্কলারশিপ দেবে রাজ্য সরকার।

ওয়েবসাইট লিংক – http://wbmdfcscholarship.gov.in/