নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, মঙ্গলকোট: রবিবার সন্ধ্যায় বিজেপির দুষ্কৃতীরা চানক গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রিনা চক্রবর্তীর বাড়ি ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ করে তৃণমূল কংগ্রেস। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি।

স্থানীয় সূত্রে খবর গতকাল সন্ধ্যায় পঞ্চায়েতের উপপ্রধান এর স্বামী প্রদীপ চক্রবর্তীর সঙ্গে  কাটমানির বিষয়ে আলোচনা করার কথা ছিল গ্রামবাসীর। কিন্তু গ্রামের সাধারণ মানুষ এলেও প্রদীপ চক্রবর্তী এই আলোচনা সভায় উপস্থিত হননি এমনটাই অভিযোগ গ্রামের মানুষের। গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের কয়েক লক্ষ  টাকা আত্মসাৎ করেছেন ওই উপ-প্রধানের স্বামী প্রদীপ চক্রবর্তী।

গ্রামবাসী চরণ বারুই জানান, আমার কাছ থেকে বাংলার আবাস যোজনার  জন্য ১০ হাজার টাকা নিয়েছে। চানক গ্রামের তপন দে জানান, মিশন নির্মল বাংলার পায়খানার জন্য আমার কাছ থেকে ১৯৫০ টাকা নেয়া হয়েছে।

রাজু মুর্মু বলছেন, ১০০ দিনের কাজের প্রায় ১৪ হাজার টাকা নিয়েছে আমার কাছ থেকে।

এই ভাবে তিনি কয়েক লক্ষ টাকা কাট মানিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ স্থানীয় মানুষজন এর।

মঙ্গলকোট ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ চক্রবর্তী জানান সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ করছে। আমি যদি কোন টাকা নিয়ে থাকি তাহলে প্রমাণ দেখাক ,সে টাকা আমি ফেরত দেবো কথা দিচ্ছি। গতকাল রাত্রে ওরা আমার বাড়ি ভাঙচুর করেছে আমি আজ লিখিত অভিযোগ জানালাম মঙ্গলকোট থানায়। আমি চাই যারা এধরনের কাজ করল প্রশাসন তাদের সাজা দিক। আমার বাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে একটি মারুতি ভ্যান ছিল সেটা কে ভেঙেছে এবং বাড়িতে বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল ও সাইকেল ছিল সব ভাঙচুর করেছে দুষ্কৃতীরা। এরা বিজিপির দুষ্কৃতী।

অপরদিকে বিজেপির চানক গ্রামের বুথ সভাপতি সুব্রত মন্ডল জানান, এই বাড়ি ভাংচুরের বিষয়ে বিজেপির কোন সম্পর্ক নেই। গ্রামের সাধারণ মানুষ তাদের টাকা ফেরত চাইছে ।এর সঙ্গে বিজেপির কোন সম্পর্ক নেই। এরপর আজ সকালে বিশাল পুলিশবাহিনী যায় পরিস্থিতি মোকাবেলার করার জন্য। পুলিশকে জনরোষের মুখে পড়তে হয়। এরপর পুলিশ স্থানীয়দের বোঝালে তারা শান্ত হয়। বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন রয়েছে  চানক গ্রামে।