নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: আমরা যা প্রতিশ্রুতি দিই তা পূরণ করি। অনেকেই কথা দেয় কিন্তু কথা রাখে না। তাদের সরকারও কথা রাখে না। আমাদের সরকার কথা রাখে। জল বাঁচাও এর পদযাত্রায় এই ভাষাতেই বিরোধীদের আক্রমন করলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ির সামনে থেকে গান্ধিমূর্তি পর্যন্ত মিছিল করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগাগোড়া এই মিছিল ছিল অরাজনৈতিক। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে আয়োজন করা হয়েছিল এই মিছিল। যেখানে জল বাঁচানোর সামাজিক বার্তা তুলে ধরা হয়।

মিছিল শুরু করার আগেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, জল বাঁচানোর জন্য রাজ্যের একাধিক প্রকল্প আছে। আগামী দিনে আরো নতুন প্রকল্প নিয়ে আসবে সরকার। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, জল বাঁচানোর কথা মাথায় রেখেই নতুন সরকার আসার আগেই জল ধরো জল ভরো প্রকল্পের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল। আজ সেই সৌজন্যে একদিকে যেমন বন্যা মোকাবিলা করা যায় একই সঙ্গে খরার মরশুমে রেহাই পাওয়া যায় জল কষ্ট থেকে। একই সঙ্গে এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বৃষ্টির জল ধরে রেখে তা পানীয় জলে রূপান্তরিত করার পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য সরকার। পরীক্ষামূলক ভাবে শুরু করা হয়েছে এই প্রকল্প। মিছিল শেষে এদিন ফের রাজ্যের প্রকল্পের সফল রূপায়ণের কথা শোনা যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলায়। তিনি বলেন রাজ্যের একাধিক প্রকল্পের সৌজন্যে উপকৃত হচ্ছে রাজ্যের বহু মানুষ।

এদিনের মিছিলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখার জন্য রাস্তার দু ধারে দাঁড়িয়ে ছিলেন বহু মানুষ। শুধু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখা নয়। জল বাঁচানোর এই সামাজিক বার্তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তারা। সব মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে বলে জানিয়েছেন তারা। মেয়ো রোডে মিছিল শেষ করার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, দক্ষিণবঙ্গে জলের অনেক সমস্যা হচ্ছে। বৃষ্টির জল ধরে রাখতে হবে।

জল নিয়ে আমাদের আগাম সতর্কতা নেওয়া দরকার। তিনি আরও বলেন, আমরা চেক ড্যাম তৈরী করেছি। এর জন্য বন্যার সময় আমাদের সুবিধা হচ্ছে। শুধু জল বাঁচানো নয়, আমাদের বিদ্যুৎ বাঁচাতে হবে। আমরা এখন গাছের চারা বিতরণ করছি। সবুজ বাঁচাতে হবে। সবুজ ধ্বংস করতে দেওয়া যাবে না। অর্থাৎ শুধু জল বাঁচানো নয় বেশ কিছু ক্ষেত্রে সামাজিক সচেতনতা গড়ে তোলার কথা এদিন বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিনের মিছিলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও ছিলেন সমাজের বিশিষ্ঠ ব্যক্তিরা। ছিলেন কবি, সাহিত্যিক আবুল বাসার, সুবোধ সরকার, অভীক মজুমদার, প্রসূন ভৌমিকরা। ছিলেন ফিল্ম জগতের অরিন্দম গাঙ্গুলি, রাজ চক্রবর্তী সহ অনেকেই। প্রাক্তন ক্রীড়াবিদরাও ছিলেন এই দিনের মিছিলে।