নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা :
নমিনেশন দিতে না দিয়ে দিনভর বদ্ধ ঘরে আটকে রাখা হল হাবিবুর রহমান নামে ওয়েলফেয়ার পার্টির এক প্রার্থীকে। শুধু তাই নয়, সে যাতে কোন ভাবে এই খবর বাইরে ছড়াতে না পারে সেই জন্য কেড়ে নেওয়া হয় তার মোবাইলও। দেওয়া হয়েছে নানা হুমকিও। অভিযোগ, এই সবটাই ঘটেছে পুলিশের সামনেই। এদিকে নমিনেশন দিতে গিয়ে বাড়ি না ফেরায় হাবিবুরের উদ্বিগ্ন পরিবার খোঁজাখুঁজি শুরু করে। সোমবার এমনটাই ঘটলো আলিপুর অফিস চত্বরে।আলিপুরের মত জায়গায় এমন ঘটনায় স্বভাবতই উদ্বিগ্ন বিরোধী দল গুলি। আতঙ্ক ছড়ায় আটকে রাখা ৬০-৭০ জন প্রার্থীদের পরিবারের মধ্যে। হাবিবুর রহমান নামে ঐ প্রার্থীর অভিযোগ, বেলা সাড়ে দশটায় আমি এসডিও অফিসে যাই। দেখি অফিসের গেটেই ২৫-৩০ জন লোক বসে। আমি নমিনেশন দিতে যাচ্ছি জেনে ওরা আমার ব্যাগ, এপিক, মোবাইল সহ সমস্ত কাগজপত্র কেড়ে নিয়ে সেখান থেকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশের সামনে থেকেই। তিনি আরো বলেন, আমাকে একটি ঘরে ঢুকিয়ে দিয়ে বলা হয় বেশি কথা বললে প্রাণে মেরে ফেলবো। ঐ ঘরে আগে থেকেই দুজন ছিলেন। বেলা বাড়ার সাথে সাথে সংখ্যাটাও বাড়তে থাকে।জানা গেছে, এই ভাবে সারা দিনে শাসক দলের গুন্ডারা বিরোধী দলের প্রায় ৬০-৭০ জনকে বিকেল ৪টে অব্দি আটকে রাখে। এবিষয়ে ওয়েলফেয়ার পার্টির রাজ্য সভাপতি শ্রী মনসা সেন বর্তমান নির্বাচন কমিশনারের অপসারণের দাবি জানিয়ে বলেন, মনোনয়নকে কেন্দ্র করে রাজ্যব্যাপী গণতন্ত্রের চরম দুরাবস্থা দেখছে জনগণ। গণতন্ত্র তাদের হাতে কলুষিত হচ্ছে যাদের প্রাণবন্ত আদর্শ নেই, চরিত্রে স্বচ্ছতা নেই, গঠনমূলক সেবা দেবার ক্ষমতা নেই। টিডিএন বাংলাকে তিনি আরো বলেন, বিকারগ্রস্থ নেতৃত্ব এদের বাহন হিসেবে ব্যবহার করে ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে মেতেছে। নির্বাচন কমিশন ও রাজ্য পুলিশের উপর আস্থা হারিয়েছে বাংলার মানুষ। কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভয়শূন্য পরিবেশে নির্বাচনের দাবিও জানান তিনি।