মাফুজ মিদ্দে, টিডিএন বাংলা, ব্রিগেড : মমতা ব্যানার্জীর ডাকে ব্রিগেডে কয়েক লক্ষ মানুষ আর দেশের তাবড় তাবড় রাজনৈতিক নেতৃত্ব উপস্থিত থাকলেও মমতার মনস্কামনা সম্পূর্ণরূপে পূর্ণ হলো না৷ কারণ বেশিরভাগ নেতৃত্ব বিজেপি তথা মোদী অমিত শাহ কে ক্ষমতাচ্যুতর কথা বললেও জোটবদ্ধ বিরোধী দলের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী কে হবেন সেই সম্পর্কে স্পষ্ট বিবৃতি দিলেন না কেউই৷

নোটবন্দি, জিএসটি প্রভৃতি ক্ষেত্রে সর্বভারতীয় বিষয়ে মমতা যেভাবে মোদী বিরোধিতা করে আন্দোলন গড়ে তোলার চেষ্টা করেছিল তাই বিরোধী জোটবদ্ধ দলগুলির মধ্যে মমতার নাম উঠে আসবে এমনটাই আশা করা হচ্ছিল৷ কিন্তু সেভাবে স্পষ্টভাবে মমতার নাম উঠে এলো না৷

দিল্লীর মূখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিয়াল বলেন, কে প্রধানমন্ত্রী হবে সেটা মূল বিষয় নয়। মূল বিষয় মোদী শাহ জুটিকে হঠাতে হবে৷ আরজেডি প্রধান লালু প্রসাদের ছেলে তেজস্বী যাদব বলেন, অভিন্নতার মধ্যেই আমাদের ঐক্যকে মজবুত করতে হবে৷ এটাই আমাদের ভারতীয় সংস্কৃতি৷

বিক্ষুব্ধ বিজেপি সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহা শক্রবার কলকাতায় পৌছে বলেন, ‘দেশকে সঠিক দিশা দেখাতে মমতার প্রধানমন্ত্রীত্বের দরকার।’ কিন্তু আজ মোদীর রাফায়েল দুর্নীতির অভিযোগের বিরুদ্ধে যেভাবে গর্জে উঠলো সেভাবে মমতার নেতৃত্ব নিয়ে গর্জে উঠলো না কেউই।