নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, মুর্শিদাবাদ : মুর্শিদাবাদে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনো কথা বলছেন না কেন? তবে কি পঞ্চায়েত ভোটের স্বার্থেই জেলায় শুধুমাত্র  বিশ্ববিদ্যালয়ের আশ্বাস দিয়েছিলো রাজ্য সরকার? গত বছরের আগস্ট মাসে নদিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘোষণার মাত্র পাঁচ মাসের মাথায় শিল্যান্যাসের পরেই মুর্শিদাবাদ জেলাবাসীর মনে প্রশ্ন গুলো ইতিমধ্যেই ঘুরপাক করতে শুরু করেছে। গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে জেলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘোষণার এতদিন পরেও কোনোরকম কাজ না এগানোয় ক্ষুব্ধ মুর্শিদাবাদের বাসিন্দারা। রাজ্যের সমস্ত কাজ এগোলেও ৮০ লক্ষ জনসংখ্যা বিশিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় হীন মুর্শিদাবাদ জেলায় কেন দ্রুত কাজ করা হবে না তা নিয়েও প্রশ্ন ঘুরপাক খেতে শুরু করেছে। বিশ্ববিদ্যালয় নয়, শুধু কি রাজনৈতিক স্বার্থের জন্য জেলাবাসীকে আশ্বাস দিয়েছিল সরকার? উঠছে প্রশ্ন।

উল্লেখ্য, স্বাধীনতার ৭০ বছর অতিবাহিত হয়ে গেলেও মুর্শিদাবাদ জেলায় একটিও পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে  উঠেনি। মুর্শিদাবাদে ২৬ টি ডিগ্রি কলেজ থাকলেও উচ্চশিক্ষার জন্য পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় নেই। এর ফলে উচ্চশিক্ষার দিক দিয়ে পিছনের সারিতে রয়েছে এই জেলা । শুধু উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রেই নয়, প্রাথমিক, মাধ্যমিক স্তরেও শিক্ষার বেহাল দুরাবস্থা পরিলক্ষিত হয়েছে। রাজ্যে কংগ্রেস, সিপিএম দীর্ঘদিন রাজনীতি করলেও জেলায় কোনো বিশ্ববিদ্যালয় প্ৰতিষ্ঠার ব্যাপারে উদ্যোগ নেয়নি। মা মাটি মানুষের সরকার  আসার দীর্ঘ  আটবছর অতিবাহিত হলেও বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার কোনো উদ্যোগ নেয়নি। জেলায় একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবি নিয়ে জেলা জুড়ে আন্দোলনে নামে ছাত্র সংগঠন, অরাজনৈতিক সংগঠন গুলো। ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে কলকাতার রাজপথ কাঁপিয়ে বিধানসভা অভিযান করে ছাত্র সংগঠন এসআইও। বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবি নিয়ে পদযাত্রা মানব বন্ধন সহ একাধিক কর্মসূচি নেয় ফোরাম ফর ইউনিভার্সিটি ইন মুর্শিদাবাদ। সার্বিক আন্দোলনের চাপে পড়ে অবশেষে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘোষণা দেয় রাজ্য সরকার।

সেই ঘোষণার প্রায় এক বছর অতিবাহিত হতে চললেও এখনও পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য জমি বাছাই এর সিদ্ধান্তই ফাইনাল করতে পারেনি সরকার। ফলে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে সরকারের মানসিকতা নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। কেননা নদীয়া জেলায় কন্যাশ্রীদের উচ্চশিক্ষার জন্য গতবছরের আগস্ট মাসে  কন্যাশ্রী বিশ্ববিদ্যালয় গড়ার ঘোষনা করেছিলেন  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরেই দ্রুত গতিতে স্থান ঠিক করে কদিন আগেই কন্যাশ্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের শুভ সূচনা করেন তিনি। নদীয়া জেলায় একাধিক বিশ্ববিদ্যালয় থাকার পরেও ফের নতুন করে দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় গঠন সম্ভব হলেও বিশ্ববিদ্যালয়হীন মুর্শিদাবাদে হচ্ছে না কেন? তা নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় হচ্চে সোশ্যাল মিডিয়া। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সভা সমিতিতে  ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন জেলাবাসী।

মুর্শিদাবাদের এক ছাত্র হযরত আলীর কথায়, অন্যান্য জেলার শিক্ষা, বিশ্ববিদ্যালয় সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ খুললেও মুর্শিদাবাদে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে তিনি এখনও পর্যন্ত একটি কথাও উচ্চারণ করেননি! সরকারের তরফ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে শুধুমাত্র ঘোষনা দেওয়া হলেও এত বড় জেলায় বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কোনো তোড়জোড় নেই সরকারের। তাহলে কি জেলা বাসীর সাথে ভোট ব্যাঙ্কের স্বার্থেই প্রতারনার আচরণ করছেন সরকার?