পাঠকের কলমে, টিডিএন বাংলা: জলছাড়া আমরা এক মুহুর্তও বাঁচতে পারিনা। তবুও আমরা সেই জলকে নিজের হাতেই ধ্বংস করে চলেছি প্রতিনিয়ত। এইভাবে চলতে থাকলে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয় হবে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা।

উল্লেখ্য, করিমপুর ২নং পঞ্চায়েত সমিতি এলাকার কাঁঠালিয়া গ্রামে দৈনন্দিন জলের অপচয় হচ্ছে প্রচুর। সরকার দ্বারা নির্মিত বিভিন্ন জল সংরক্ষন প্রকল্প- ‘সজল ধারা’, ‘জল ধরো জল ভরো’, পি.এইস.ই, এদের মধ্যে গ্রাম্য জল নিশ্চয়তা প্রকল্প হলো পি.এইস.ই। এই জল প্রকল্প কাঁঠালিয়া গ্রামে কয়েক বছর আগেই চালু হয়েছে। তবে রাস্তার ধারে যে জলের কল গুলো আছে সেগুলোর একটাও চাবি নেই। এমন দৃশ্য দেখা মেলে রাজ্যের সর্বত্র।

তাই দৈনিক তিন বেলায় প্রায় ৬ ঘন্টা অনবরত জল পড়তেই থাকে। অথচ আমরা শুনে আসছি জল নিয়ে তৃতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সম্ভবনা। ঘটনায় প্রশাসনের কোনো মাথা ব্যথা নেই। এই ভাবে যদি জলের অপচয় হতে থাকে তাহলে জলের স্তর আরও নীচে নেমে যাবে। ‘জলই জীবন’ তবে সেই জীবনকে মৃত্যুর দিকে নিয়ে যাচ্ছি আমরা নিজেই। এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জল সঙ্কট হয়তো আমাদেরই দেখে যেতে হবে।

ছাবির সেখ
কাঁঠালিয়া, করিমপুর, নদীয়া