পাঠকের কলমে, টিডিএন বাংলা: আজ ১৮ই  ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক সংখ্যালঘু অধিকার দিবস । কিন্তু আমার প্রশ্ন কিসের সেই অধিকার দিবস?

যে দেশে সংখ্যালঘুদের মসজিদ ভাঙা হয়, যে দেশে সংখ্যালঘু মালদা জেলার আফরাজুল কে প্রকাশ্যে  পুাড়িয়ে মারা হয়, যে দেশে আকলাখকে প্রকাশ্যে পিটিয়ে মারা হয়, যে দেশে জুনাইদ ও আলাউদ্দিন কে পিটিয়ে মারা হচ্ছে , যে দেশে গো-রক্ষার নামে এখন পর্যন্ত ২৩৫ জন সংখ্যালঘু কে খুন করা হয়েছে? সেদেশে সংখ্যালঘু অধিকার দিবস পালনের যৌক্তিকতা কোথায় ?

সংখ্যালঘু অধিকার দিবসে আমার প্রশ্ন, নরেন্দ্র মোদি সরকার আসার পরে লাগাতার সংখ্যালঘু মুসলিম, খ্রিস্টানরা আক্রমণের শিকার হচ্ছে কেন ? মোদির রাজত্বে গত সাড়ে চার বছরে দলিত ও আদিবাসীদের উপর আক্রমণের ঘটনা প্রতিনিয়তই বাড়ছে কেন ? ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার প্রতিবাদ করায় পানসারে,কালবুর্গি ,গৌরী লঙ্কেশ, সুজাত বুখারী কে খুন হতে হবে কেন? এ কোন দেশে আমরা বসবাস করছি?

আমাদের দেশের গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা সংবিধানের অন্যতম ভিত্তি, কিন্তু এই ভিত্তিটাই আজ আক্রান্ত। বিজ্ঞান চেতনা,যুক্তিবাদ ও প্রতিবাদি কন্ঠ আজ আক্রান্ত। এইরকম দেশে আমরা আজ কঠিন পরিস্থিতির মুখোমখি । তাই আজকের দিনে ভাবনা হোক সংখ্যালঘু অধিকার কে সুনিশ্চিত করতে ধর্মনিরপেক্ষ মানুষের  ঐক্যকে শক্তিশালী করতে হবে।ধর্মনিরপেক্ষতা আন্দোলন তখই মজবুত হবে যদি তা মানুষের রুটিরুজির আন্দোলনেরর সঙ্গে তাকে সম্পর্কযুক্ত করা যায়। আজকের দিনে এই ভাবনা আমাদের হোক।

মহঃ আসাদুজ্জামান

রাজ্য কমিটির সদস্য

গনতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা সমিতি