টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বিশ্বের দেড় শতাধিক দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। যেসব দেশের অনেকগুলোই গরমপ্রধান। করোনা ভাইরাস সম্পর্কে নানা ধরনের সচেতনতামূলক তথ্য ও গুজব ছড়িয়ে গেছে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে অনেকেই পোস্ট দিচ্ছেন, অতিবেগুনি রশ্মি, ক্লোরিন ও উচ্চ তাপমাত্রায় করোনা নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়। কিন্তু করোনা ভাইরাস উচ্চ তাপমাত্রায় মারা যায় কি না, সে ব্যাপারে এখনও পর্যন্ত কোনো গবেষণার ফল প্রকাশ হয়নি। সে কারণে এটি নিশ্চিত হয়ে বলা যাবে না।

অ্যালকোহল পান করলে করোনা থেকে রক্ষা পাওয়ার বিষয়টি সঠিক নয়। ইরানে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে গুজবের ফাঁদে পা দিয়ে। বারবার হাত ধোঁয়ার ফলে ঠান্ডা লেগে যেন না যায়, সে ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে। সেই সঙ্গে আক্রান্তদের কাছ থেকে দূরে থাকতে হবে এবং জনসমাগম এড়িয়ে চলা ভালো।

অতিবেগুনি রশ্মি, ৫৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা, বিশুদ্ধ বাতাস, ক্লোরিন, অ্যালকোহল, কিছু সময় পর পর হাত ধোয়া, ইমিউন সিস্টেম শক্তিশালী হওয়ার বিষয়গুলো করোনার সঙ্গে মেলানো হচ্ছে।

কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিশুদের সূর্যের হালকা আলোতে রাখার কথা বলা হয়। সেটাও একেবারে সকালে এবং সূর্যাস্তের আগ মুহূর্তে। কাপড় ভালোভাবে জীবাণুমুক্ত করতে রোদে দিতে বলা হয়। তবে কোনোভাবেই অতি বেগুনি রশ্মি মানুষের ত্বকের ওপর ফেলা ঠিক নয়।

মার্কিন বিজ্ঞানিরা বলছেন, মানুষের ত্বকের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর অতি বেগুনি রশ্মি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) জানিয়েছে, করোনা ভাইরাসের জীবাণু মেরে ফেলতে কোনোভাবেই অতি বেগুনি রশ্মি ব্যবহার করা ঠিক নয়।

তবে ক্লোরিন দিয়ে করোনা ভাইরাসের জীবাণু ধ্বংস করা যায়। এক্ষেত্রে সঠিক পদ্ধতি ও ব্যবহারের পরিমাণ জেনে নিতে হবে। কোনোভাবেই শরীরে ক্লোরিন ছেঁটানো যাবে না। বিশেষ করে স্পর্শকাতর স্থানে ক্লোরিন পড়লে ফল ভয়াবহ হতে পারে। চোখ ও মুখে ক্লোরিন কোনোভাবেই পড়া যাবে না।