টিডিএন বাংলা ডেস্ক: এর আগেও ফেসবুকের বিরুদ্ধে তথ্য ফাঁসের অভিযোগ উঠেছিল। আরও একবার ফেসবুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠল। এবার ফেসবুকের বিরুদ্ধে ৪০ কোটি ব‍্যবহারকারীর ফোন নাম্বার ফাঁস করার অভিযোগ উঠেছে। মার্কিন এক সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে সব মিলিয়ে ৪১ কোটি ৯০ লক্ষ ফেসবুক ব্যবহারকারীর (Facebook User) রেকর্ড তুলে রাখা হয়েছে এক সার্ভারে। টেকনোলজির সংবাদদাতা এক খবরের ওয়েবসাইট টেকক্রাঞ্চ জানাচ্ছে, এর মধ্যে ১৩ কোটি ৩০ লক্ষ মার্কিন অ্যাকাউন্ট, ভিয়েতনামের ৫ কোটি এবং ব্রিটেনের ১ কোটি ৮০ লক্ষ ব্রিটেনের অ্যাকাউন্ট রয়েছে। ওই ডেটাবেসে কোনও পাসওয়ার্ড দেওয়া নেই। যে কেউই চাইলেই ওই তথ্য পেতে পারে। বুধবার পর্যন্ত তা অনলাইনই রয়েছে বলে টেকক্রাঞ্চ জানাচ্ছে। ওই ডেটাবেসে রয়েছে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ইউজার আইডি। প্রত্যেক অ্যাকাউন্টের সঙ্গেই নির্দিষ্ট সংখ্যা যুক্ত থাকে।

এছাড়াও ব্যবহারকারীদের ফোন নম্বর, তাঁর লিঙ্গ পরিচয় ও ভৌগোলিক বাসস্থানও ডেটাবেসে দেওয়া আছে বলে টেকক্রাঞ্চ জানিয়েছে।

ফেসবুক এই অভিযোগ আংশিক ভাবে স্বীকার করলেও তারা জানিয়েছে, যা দাবি করা হচ্ছে সংখ্যাটা (৪১ কোটি ৯০ লক্ষ) তার অর্ধেক। তারা জানিয়েছে ওখানে বহু নামই পুনরাবৃত্ত হয়েছে এবং তথ্যও পুরনো।

ফেসবুকের এক মুখপাত্র জানিয়েছে, ‘‘ওই ডেটাসেট সরিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং আমরা এমন কোনও প্রমাণ পাইনি যা থেকে বলা যায় ফেসবুক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে কোনও আপস করা হয়েছে।”

২০১৮ সালে ফেসবুকের তথ্য ফাঁসের আরও একটা অভিযোগ উঠেছিল। সেবারও কয়েক কোটি ফেসবুক অ্যাকাউন্টের তথ্য ফাঁস হওয়ার কথা শোনা গিয়েছিল। প্রোফাইলের ‘ভিউ অ্যাজ’ ফিচারে নিরাপত্তা সংক্রান্ত ফাঁক দিয়েই হ্যাকারেরা হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেছিল ফেসবুক।

ফোন নম্বর ফাঁস হওয়ার ফলে স্প্যাম কলের পাশাপাশি সিম-সোয়াপিংয়ের সমস্যায় পড়তে হতে পারে ব্যবহারকারীদের। সম্প্রতি টুইটার সিইও জ্যাক ডোর্সিও এই কারণে বিড়ম্বনায় পড়েছিলেন।